লালু প্রসাদের শারীরিক অবস্থার অবনতি, রাঁচি থেকে আনা হবে দিল্লি এইমস-এ

Mysepik Webdesk: বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে শুরু করে রাষ্ট্রীয় জনতা দলের নেতা লালু প্রসাদ যাদবের। সেই কারণে তাঁকে রাঁচি থেকে দিল্লি এইমস-এ স্থানান্তরিত করার প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে। জানা গিয়েছে, শুক্রবার বিকেল থেকেই তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়া শুরু হয়। শনিবার সকালে তাঁর শরীর আরও খারাপ হতে থাকে। সেই কারণে ঝুঁকি না নিয়ে তাঁকে দিল্লি নিয়ে আসার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যেই রাঁচির হাসপাতালে পৌঁছে গিয়েছেন স্ত্রী রাবড়ি দেবী, দুই ছেলে তেজপ্রতাপ ও তেজস্বী। মেয়ে মিসা ভারতীও রয়েছে তাঁদের সঙ্গে।

আরও পড়ুন: সুভাষ-স্মরণে আজ থেকেই পথ চলা শুরু করবে ‘নেতাজি এক্সপ্রেস’

Pneumonia patches in lungs, Lalu Yadav's health 'improves marginally' |  India News,The Indian Express

ইতিমধ্যেই হার্ট সার্জারি হয়েছে লালু প্রসাদ যাদবের। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, তাঁর কিডনি মাত্র ২৫ শতাংশ কাজ করছে। এছাড়াও নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত তিনি। সেই কারণেই প্রবল শ্বাসকষ্টর সমস্যায় ভুগছেন তিনি। পশুখাদ্য কেলেঙ্কারি সংক্রান্ত একাধিক মামলায় তাঁকে ১৪ বছর কারাদণ্ডের সাজা শুনিয়েছিল রাঁচির সিবিআই-এর বিশেষ আদালত। তবে সাজার বেশিরভাগ সময়ই তিনি শারীরিক অসুস্থতার জন্য রাঁচি ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্সে চিকিৎসাধীন। সেই কারণে তাঁকে দিল্লি নিয়ে আসতে গেলে সংশোধনাগারের চিকিৎসকদের সম্মতির পাশাপাশি লোয়ার কোর্টের অনুমতি প্রয়োজন। সেই অনুমতি পাওয়া গেলেই তাঁকে নিয়ে যাওয়া হবে দিল্লিতে।

আরও পড়ুন: জানেন অগ্নিকাণ্ডের ফলে কত টাকা ক্ষতি হয়েছে সেরামের?

শুক্রবার রাতে প্রায় ৬ ঘণ্টা বিহারের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী রাবড়ি দেবী ও কন্যা মিসা ভারতী আজ ফের রিমসে পৌঁছেছেন। মা ও মেয়ে দু’জনেই অসুস্থ আরজেডি সুপ্রিমো লালুপ্রসাদ যাদবের সঙ্গে দেখা করছেন। শুক্রবার রাতে তাঁর স্বামী লালুপ্রসাদের সঙ্গে দেখা করে রাবড়ি আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েছিলেন। তবে লালু যাদব তাঁদের আশ্বস্ত করেছিলেন যে, শীঘ্রই সুস্থ হয়ে উঠবেন তিনি।

অন্যদিকে, লালু যাদবের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করার জন্য রিমস ব্যবস্থাপনা একটি মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করেছে। এতে বিভিন্ন বিভাগের ৮ জন চিকিৎসককে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

মেডিক্যাল বোর্ডের মধ্যে রয়েছেন রিমস মেডিসিন বিভাগের প্রধান ডাঃ জে কে মিত্র, সার্জারি হেড ডাঃ আর জি বখলা, চক্ষু বিভাগের প্রধান ডাঃ ভি বি সিনহা, আর্থো হেড ডাঃ এল বি মাঞ্জি এবং রেডিয়োলজি বিভাগের প্রধান ডাঃ সুরেশ টপ্পো ছাড়াও কার্ডিওলজি বিভাগের প্রধান ডাঃ হেমন্ত নারায়ণ, ইউরোলজি বিভাগের প্রধান ডাঃ জামাল এবং নেফ্রোলজি বিভাগের প্রধান ডাঃ প্রজ্ঞা পান্ত।

উল্লেখ্য যে, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে লালুপ্রসাদ যাদবের শ্বাসপ্রশ্বাস-জনিত সমস্যা হচ্ছে। তাঁর মুখে ফোলাভাবও রয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে বাবার সঙ্গে দেখা করার পর তেজস্বী যাদব বলেছিলেন যে, ”বাবা ভালো নেই, তাঁর মুখে ফোলাভাব রয়েছে এবং শ্বাস নিতে সমস্যা হচ্ছে তাঁর। আমরা চাই তাঁকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বাইরে নিয়ে যাওয়া হোক। লালুপ্রসাদের ফুসফুসে জল জমে থাকা সম্পর্কে তথ্য প্রদান করে তেজস্বী যাদব জানিয়েছিলেন যে, তাঁর বাবার পরিস্থিতি উদ্বেগজনক। ক্রিয়েটিনিনও বৃদ্ধি পেয়েছে।

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *