নবান্ন অভিযানে পুলিশের হামলা, ১২ ঘন্টা বনধের ডাক দিল বাম সংগঠনগুলি

Mysepik Webdesk: নবান্ন অভিযানে পুলিশি হামলার গুরুতর অভিযোগ তুলে শুক্রবার পশ্চিমবঙ্গে ১২ ঘণ্টার বনধের ডাক দিল বাম সংগঠনগুলি। বৃহস্পতিবার বিকেলে একথা ঘোষণা করেছেন সিপিএম নেতা সুজন চক্রবর্তী। তিনি বলেন, “আমি আশা করব নিজেদের পরিবারের ছাত্র যুবদের ভবিষ্যতের কথা ভেবে তৃণমূল সমর্থকরাও এই বনধে অংশগ্রহণ করবেন।” তিনি আরও বলেন, “এদিন বাম ছাত্র যুবরা ন্যায্য দাবি তুলেছিল। বৃহস্পতিবারের নবান্ন অভিযানে ছাত্র-যুবদের ওপর অকথ্য অত্যাচার করেছে পুলিশ। পুলিশের মারে আহত হয়ে অন্তত ২৫ জনকে হাসপাতালে ভর্তি হাতে হয়েছে। এই পুলিশি নির্যাতনের প্রতিবাদে আগামিকাল ১২ ঘণ্টার বনধের ডাক দিয়েছে বামেরা।”

আরও পড়ুন: রাত পোহালেই খুলছে বিদ্যালয়! চলছে চূড়ান্তকালীন প্রস্তুতি

Image result for nabanna abhijan cpim

এদিন বাম ছাত্র যুবদের বৃহস্পতিবারের নবান্ন অভিযান ঘিরে ধুন্ধুমার ডোরিনা ক্রসিং। ছাত্র যুবদের বেধড়ক মারধরের অভিযোগ উঠল পুলিশের বিরুদ্ধে। পুলিশের লাঠির আঘাতে রক্তাক্ত হন আন্দোলনকারীদের একাংশ। জল কামানের জলের তোড়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন অনেকেই। পুলিশ-ছাত্রদের গোলমালের মাঝে পড়ে গুরুতর আহত হন এক সাধারণ পথচারীও। বাম ছাত্র যুবদের এই কর্মসূচি ঘিরে এই মুহূর্তে উত্তাল শহর কলকাতা। পুলিশের লাঠিচার্জে একাধিক আন্দোলনকারী গুরুতর জখম হন। কারও মাথা ফাটে, কেউ পায়ে গুরুতর চোট পান। ঘটনাস্থলে অ্যাম্বুলেন্স না থাকার অভিযোগ ওঠে। কোনও মহিলা পুলিশ কর্মীও ছিল না বলে অভিযোগ।

আরও পড়ুন: নবান্ন অভিযানে ছাত্র যুবদের বেধড়ক মারধরের অভিযোগ উঠল পুলিশের বিরুদ্ধে

Image result for nabanna abhijan

আহতদের ভ্যানে কিংবা মোটর বাইকে হাসপাতালে নিয়ে যেতে দেখা যায়। জানা যাচ্ছে, এসএসকেএম ও মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে তাঁদের। আন্দোলনকারীদের দাবি, শান্তিপূর্ণভাবে মিছিল এগিয়ে নিয়ে যাওয়া হলেও পুলিশ ইচ্ছাকৃতভাবে তাঁদের উপর হামলা চালায়। বেধড়ক মারধর করা হয়। মহিলা পুলিশ ছাড়াই মেয়েদের উপর লাঠিচার্জ করা হয় বলে অভিযোগ। জল কামানের জলের তোড়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন একাধিক আন্দোলনকারী। একজন শ্বাসকষ্ট নিয়ে রাস্তায় লুটিয়ে পড়েন। পুলিশ চুল ধরে টানে, বেধড়ক মারধর করে বলে অভিযোগ।

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *