জবাব চেয়ে ফের আলাপনকে চিঠি কেন্দ্রের, কঠোর পদক্ষেপের ইঙ্গিত?

Mysepik Webdesk: কেন্দ্রীয় সরকারের চাকরির শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগ এনে রাজ্যর প্রাক্তন মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে ফের চিঠি দিলো কেন্দ্রীয় সরকার। ওই চিঠিতে জানানো হয়েছে, তাঁর আগের জবাবে সন্তুষ্ট নয় কেন্দ্র। ফলে, ফের এক মাসের মধ্যে আরও একবার তাঁকে জবাবদিহি করতে হবে। কেন্দ্রের তরফে ওই চিঠিতে জানানো হয়েছে, তিনি তাঁর সার্ভিস রুলের আট নম্বর ধারা লঙ্ঘন করেছেন। তাঁর বিরুদ্ধে একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়েছে। এমনকি তাঁকে স্বশরীরে ওই তদন্তর দায়িত্বপ্রাপ্ত আধিকারিকদের সম্মুখীন হতে হবে। অন্যথায় তাঁর বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

আরও পড়ুন: পুজোর আগেই রাজ্যে ২৪ হাজারেরও বেশি শিক্ষক নিয়োগ করা হবে, ঘোষণা মমতার

গত ৩ জুন তাঁর বিরুদ্ধে আনা কেন্দ্রের যাবতীয় অভিযোগের উত্তর দিলেন মুখ্যমন্ত্রীর প্রধান উপদেষ্টা আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়। ওই দিন তিনি চারপাতার একটি চিঠিতে তাঁকে যে শো-কজ করা হয়েছিল, তার উত্তর দেন। এদিকে একই বিষয়বস্তু দেখিয়ে কেন্দ্রকে চিঠি পাঠিয়েছিলেন রাজ্যের বর্তমান মুখ্যসচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদীও। নবান্ন সূত্রে খবর, ওই দু’জনের চিঠির বিষয়বস্তুও ছিল প্রায় একই। কারণ, দু’জনকেই উদ্দেশ্য করে কেন্দ্রের তরফ থেকে একই কথা বলা হয়েছিল। যে চিঠি আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় পাঠিয়েছিলেন, সেখানে তিনি উল্লেখ করেছেন, কেন্দ্রের তরফে বৈঠকে না থাকার যে অভিযোগ তাঁর বিরুদ্ধে বার বার আনা হচ্ছে, তা সঠিক নয়।

আরও পড়ুন: সারদাকাণ্ডে জামিন পেলেন দেবযানী

বিতর্কের শুরু গত ২৮ মে। কলাইকুণ্ডায় বৈঠকে পৌঁছনোর জন্য প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তার জন্য হেলিকপ্টার নির্ধারিত সময়ের ২০ মিনিট দেরিতে ছাড়ে। এদিকে বৈঠকস্থলে পৌঁছানোর পরেও প্রধানমন্ত্রী সঙ্গে দেখা করার জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয়। সেই কারণে তাঁরা প্রধানমন্ত্রীর হাতে রাজ্যের ক্ষয়ক্ষতির রিপোর্ট দিয়েই বেরিয়ে আসেন। কারণ তাঁদের সেখান থেকে বেরিয়ে ইয়াসে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা পরিদর্শন করার কথা ছিল। এরপরেই কেন্দ্রের তরফ থেকে আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে বিপর্যয় মোকাবিলা আইন ভঙ্গ করার অভিযোগে শো-কজ করা হয়। আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ে চিঠিতে জানিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রী যে এনডিএমএ- চেয়ারম্যান হিসেবে ওই বৈঠকে উপস্থিত থাকছেন তা উল্লেখ ছিল না আমন্ত্রণে।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *