মধ্যপ্রদেশ দুর্ঘটনায় মৃত বেড়ে ৫১, জলের স্রোতে পাতার মতো ভেসে গিয়েছে ৫ মাসের শিশু, শোকের পরিবেশ চারিদিকে

Bus

Mysepik Webdesk: মধ্যপ্রদেশে দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা ৫১ জন। মঙ্গলবার রাত পর্যন্ত ৪৭টি মৃতদেহ পাওয়া গিয়েছিল। বুধবার আরও ৪টি মরদেহ পাওয়া গেছে, যার মধ্যে রেওয়াতে ৫ মাস বয়সি এক শিশুর লাশ পাওয়া গেছে। নিখোঁজ ৩ জনের সন্ধান চলছে। এদিকে, মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান আজ ঘটনাস্থলে আসবেন। তিনি ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলির সঙ্গে দেখা করবেন।

আরও পড়ুন: চাষ করে ৩০ কোটি টাকার হেলিকপ্টার কিনলেন মহারাষ্ট্রের কৃষক

Image result for madhya pradesh bus accident

বাসে তার মায়ের কোলে ছিল ৫ মাস বয়সি নিষ্পাপ শুভী ওরফে সৌম্য। দুর্ঘটনার সময় মায়ের কোল থেকে পড়ে গিয়ে ছোট্ট শুভী জলের স্রোতের সঙ্গে গাছের পাতার মতো প্রবাহিত হয়েছিল। ২৪ ঘণ্টা পরে সিধি উপকণ্ঠ থেকে ২২ কিলোমিটার দূরে রেওয়ার গোবিন্দগড়ের কাছে তার মরদেহ পাওয়া গেছে। মঙ্গলবার বাসে তার মা ও মাসির লাশ পাওয়া গেছে।

পুলিশ রেওয়া শহরের সিমারিয়া বাসিন্দা, বাসচালক, ২৮ বছরের বালেন্দ্র বিশ্বকর্মাকে গ্রেপ্তার করেছে। জিজ্ঞাসাবাদের পর বাসচালক পুলিশকে জানায়, দুর্ঘটনায় তার একটি ড্রাইভিং লাইসেন্স ভেসে গেছে, অন্য লাইসেন্স রেওয়াতে, একই গাড়ির নথি সাতনায়। এর পরে, বলেন্দ্রের ড্রাইভিং লাইসেন্স এবং বাসের নথিগুলির জন্য রেওয়া এবং সাতনায় দু’টি দলকে পাঠানো হয়েছে। পুলিশ ড্রাইভারের কাছ থেকে খোঁজ নেওয়ার চেষ্টা করছে যে, এর আগেও সে বাসের ওভারলোড করত কিনা? এএসপি অঞ্জুলতা পাটলে জানিয়েছেন, বাসে মোট ৬৩ জন যাত্রী ছিল। দুর্ঘটনা ঘটার আগে ৩ জন বাস থেকে নেমেছিল। ৬০ যাত্রীর মধ্যে ৬ জনের জীবন বাঁচানো গেছে বলে খবর।

আরও পড়ুন: স্বস্তির খবর, একধাক্কায় লিটারে ৭ টাকা দাম কমল পেট্রল-ডিজেলের

Image result for madhya pradesh bus accident

বাসচালক বেলেন্ডু কুশওয়াহার ভিডিয়ো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। এতে সে বলেছে যে, “চলন্ত বাসে হঠাৎ শব্দ হয়েছিল। এর পরে বাসটি পিছলে গিয়ে খালে পড়ে যায়। আমি কোনওভাবে আমার জীবন বাঁচিয়েছি। আমার পিছনে আমারও একটি মেয়ে ছিল। সেও বেরোনোর ​​চেষ্টা করেছিল। ওই সময়ে উপর থেকে দু’জন লোক একটি দড়ি ফেলেছিল, যার সাহায্যে আমরা বেরিয়ে আসতে পেরেছিলাম।”

সিধি-সাতনা রুটের বাস MP-19P 1882, যা খালে উল্টে পড়েছিল। বাসটিতে মোট ৩৩টি স্থানের ৬০ জন যাত্রী ছিল। এর সর্বাধিক ছিল রামপুর নাইকিন, কুসামি এবং বাহ্রি ভেলা থেকে, বাকিরা আশপাশের গ্রামে বাস করত। দুর্ঘটনায় বেঁচে থাকা লোকেরা এটিকে একটি অলৌকিক হিসাবে বিবেচনা করছেন। এর মধ্যে তিনজন পুরুষ এবং তিনজন যুবতী রয়েছে। সাহসী কন্যা শিবরানি এবং তাঁর পরিবার এই ৬ জনকে বাঁচাতে দুর্দান্ত পদক্ষেপ নিয়েছিলেন।

Image result for madhya pradesh bus accident

এই ৬ জন বেঁচে আছেন, তাঁদের নাম― ১. স্বর্ণলতা প্রভা (২৪), ২. বিভা প্রজাপতি (২১) ৩. অর্চনা জয়সওয়াল (২৩), ৪. সুরেশ গুপ্ত (৬০), ৫. জ্ঞানেশ্বর চতুর্বেদী (৫০), অনিল তিওয়ারি (৪০)। মৃত্যুকে পরাজিত করে অনিল তিওয়ারি বলেছিলেন, “খালে ডুবে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বাসের বন্ধ জানালাটি খুব জোরে বাড়ি খায়, যার ফলে জানালার কাচ ভেঙে যায়। আমি সাঁতার জানতাম। পাশে বসা সুরেশ গুপ্তকে বাঁচানোর চেষ্টা করলাম এবং জানালা থেকে টেনে আনলাম। সুরেশ গুপ্ত সাঁতার সম্পর্কে খুব কমই জানতেন। কিন্তু দু’জন একে অপরের হাত ধরে খালের কিনারা ধরলাম। প্রায় ৩০০ মিটার দূরে, একটি পাথর পাওয়া গিয়েছিল, যার সাহায্যে উভয়ই জীবন বাঁচাতে পেরেছিলাম।”

উল্লেখ্য যে, এই ভয়াবহ দুর্ঘটনার খবর পেয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি শোকপ্রকাশ করে মৃতদের পরিবারকে ২ লক্ষ টাকা এবং আহতদের ৫০ হাজার টাকা দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন। অন্যদিকে, মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিংহ চৌহান মৃতদের পরিবারকে ৫ লক্ষ টাকা আর্থিক অনুদান দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন।

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *