পাকিস্তানে বড়সড় ট্রেন দুর্ঘটনা: ৩০ জন নিহত, আহত ৫০-এরও বেশি

Mysepik Webdesk: সোমবার ভোরে পাকিস্তানে বড়সড় ট্রেন দুর্ঘটনা ঘটেছে। সিন্ধুর দাহারকি এলাকায় দু’টি ট্রেনের সংঘর্ষ হয়। দুর্ঘটনায় প্রায় ৩০ জন মারা গেছেন এবং ৫০ জনেরও বেশি লোক আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। তথ্য মতে, মিল্লাত এক্সপ্রেস ও স্যার সৈয়দ এক্সপ্রেসের মধ্যে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। অনেক মানুষ বগিতে আটকে পড়েছেন। এমন পরিস্থিতিতে মৃতের সংখ্যা আরও বাড়বে বলে আশা করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন: পাক অধিকৃত কাশ্মীরে নির্বাচন পিছিয়ে দেওয়ার জন্য উত্তেজনা ছড়ানোর অভিযোগ তেহরিক-ই-ইনসাফের বিরুদ্ধে

ঘোটকির কাছে রেতি ও দহরকি রেলস্টেশনের মাঝামাঝি ভোর ৩টে ৪৫ মিনিটে দুর্ঘটনাটি ঘটে। তথ্য মতে, মিল্লাত এক্সপ্রেস করাচি থেকে সর্গোধা এবং স্যার সৈয়দ এক্সপ্রেস রাওয়ালপিন্ডি থেকে করাচিতে যাচ্ছিল। পাকিস্তানি সংবাদমাধ্যমের মতে, বিপরীত দিক থেকে আসা স্যার সৈয়দ এক্সপ্রেসের সংঘর্ষে দুই ট্রেনেরই বগি লাইনচ্যুত হয়।

দুর্ঘটনার পরে অফিসাররা চার ঘণ্টা ঘটনাস্থলে পৌঁছয়নি। উদ্ধারকারী দল দেরিতে পৌঁছে উদ্ধারকাজ শুরু করে। এখনও অনেক যাত্রী বগিতে আটকে পড়েছেন বলে মনে করা হচ্ছে। আটকে পড়া যাত্রীদের গ্যাস কাটার দিয়ে বগি কেটে উদ্ধার করা হচ্ছে। আশপাশের গ্রাম থেকে আগত ট্র্যাক্টর-ট্রলি করে তাঁদের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। দুর্ঘটনার কারণে এই রুটের বেশিরভাগ যানচলাচল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

আরও পড়ুন: সন্ত্রাসী হামলায় পশ্চিম আফ্রিকার বুরকিনা ফাসোতে নিহত ১৩২

ঘোটকি জেলা প্রশাসক ওসমান আবদুল্লাহ জানান, উভয় ট্রেনের ১৩ থেকে ১৪টি বগি লাইনচ্যুত হয়েছে। এর মধ্যে ৬ থেকে ৮টি বগি সম্পূর্ণ নষ্ট হয়ে গেছে। সেই কারণেই বগিতে আটকে পড়া মানুষদের উদ্ধার করতে সমস্যা হচ্ছে। দুর্ঘটনার পরে আহতদের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। ঘোটকি, দাহারকি, ওবেরো ও মিরপুর ম্যাথেলো হাসপাতালে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়েছে। ডাকা হয়েছে কর্তব্যরত চিকিৎসক ও প্যারামেডিক্যাল কর্মীদের।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *