আমফানের চেয়েও বড় ‘যশ’, রাজ্যবাসীকে সতর্কবার্তা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের

Mysepik Webdesk: বঙ্গোপসাগরে তৈরি হওয়া ঘূর্ণিঝড় যশ ধেয়ে আসছে বাংলার দিকে, সোমবার নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে রাজ্যবাসীকে সতর্ক করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন, যশ-এর কারনে রাজ্যের ২০টি জেলা মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্থ হবে। তিনি জানান, ২৪ ঘণ্টার কন্ট্রোল রুম চালু হয়েছে। সেখানে সংশ্লিষ্ট আধিকারিকরা ২৪ ঘন্টা ঝড়ের গতিপ্রকৃতির ওপর নজর রাখছেন। এছাড়াও সমুদ্র উপকূলবর্তী এলাকার বাসিন্দাদের জন্য রাজ্যজুড়ে চার হাজার ত্রাণ শিবির খোলা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

আরও পড়ুন: স্থলভাগের দিকে এগোতে শুরু করেছে যশ, উত্তাল হচ্ছে দিঘার সমুদ্র

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “খবর রয়েছে, আমফানের থেকেও বড় হতে চলেছে যশ। জীবনের ঝুঁকি নেবেন না। মৎস্যজীবীরা সমুদ্রে যাবেন না। বিভিন্ন ব্লকে রিলিফ সেন্টার তৈরি করা হয়েছে। ১০ লাখ মানুষকে নিরাপদে সরানোর ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। বিপর্যয় মোকাবিলায় ৫১টি দল তৈরি করা হয়েছে।” তিনি আরও বলেন, “যশ নিয়ে অমিত শাহবাবু আজ বৈঠক করেছেন। ওড়িশা, অন্ধ্রপ্রদেশকে ৬০০ কোটি করে টাকা দিচ্ছে। বাংলাকে ৪০০ কোটি করে টাকা দিচ্ছে। বাংলা এত বড় রাজ্য। তাহলে আমরা কেন বঞ্চিত হচ্ছি? গতবার আমফানের টাকাও পেলাম না।”

আরও পড়ুন: সন্ধ্যায় নয়, বুধবার দুপুরেই আছড়ে পড়বে ঘূর্ণিঝড় ‘যশ’

প্রসঙ্গত, সোমবার ভোরেই গভীর নিম্নচাপ থেকে ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়েছে যশ। আবহাওয়া দপ্তরের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, শেষ ছ’ঘণ্টায় পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগরে একই জায়গায় অবস্থান করে আছে যশ। সেখানেই ঘূর্ণিঝড়টি সমুদ্র থেকে জলীয়বাষ্প শোষণ করে আরও শক্তি বাড়িয়েছে। সোমবার ভোর ৫ টা ৩০ মিনিট নাগাদ যশের অবস্থান ছিল পোর্ট ব্লেয়ারের উত্তর ও উত্তর-পশ্চিমে ৬০০ কিলোমিটার দূরে, ওড়িশার পারাদ্বীপের পূর্ব ও দক্ষিণ-পূর্বে ৫৪০ কিলোমিটার দূরে, বালাসোরের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্বে ৬৫০ কিলোমিটার দূরে এবং দিঘার দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্বে ৬৩০ কিলোমিটার দূরে। আগামী ২৪ ঘণ্টায় ঘুণিঝড় আরও শক্তি বাড়িয়ে প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হবে। বুধবার দুপুর নাগাদ সেটি স্থলভাগে আছড়ে পড়বে।

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *