মোটা গাছের গুঁড়ি ব্যবহার করে সুন্দরবনে বাঁধ দেওয়ার পরামর্শ মমতার

Mysepik Webdesk: বন্যা, প্লাবনের মতো প্রকৃতির রোষের হাত থেকে উপকূলবর্তী মানুষের ক্ষয়ক্ষতি রক্ষা করতে এদিন পরামর্শ দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেক্ষেত্রে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কংক্রিট বা ইট-পাথর দিয়ে তৈরি বাঁধের পরিবর্তে মোটা গাছের গুঁড়ি ব্যবহারের পরামর্শ দিলেন। এদিন নবান্ন থেকে একটি সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, “কংক্রিট বা ইট-পাথর দিয়ে তৈরি বাঁধ প্রকৃতির রোষে, জলের তোড়ে ভেঙেই যাবে। পরিবর্তে বনদপ্তরের দায়িত্বে আরও ৫ কোটি করে ম্যানগ্রোভ চারা বসাতে হবে সুন্দরবন এবং দিঘায়।”

আরও পড়ুন: করোনামুক্ত বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য আজ হাসপাতাল থেকে ছুটি পাচ্ছেন

যদিও আমফানের পরবর্তী সময়ে সুন্দরবনে ৫ কোটি ম্যানগ্রোভ চারা বসানো হয়েছিল। সেই দায়িত্বে ছিল কলকাতা পুরসভা। পাশাপাশি ওই এলাকায় বেশ কয়েকটি বৃক্ষরোপন অভিযানও করা হয়েছিল। কিন্তু আমফানে সব নষ্ট হয়ে গিয়েছে। এদিন নবান্নে এই বিষয়ে চরম ক্ষোভ ক্ষোভ প্রকাশ করে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “আমফানের গাছগুলো কোথায় গেল? আমার তিনদিনের মধ্যেই রিপোর্ট চাই। রিপোর্ট দেওয়া হবে বলে বসে থাকবেন না। তিনদিনের মধ্যেই দেবেন।”

আরও পড়ুন: পিছিয়ে গেল মাধ্যমিক-উচ্চ মাধ্যমিকের পরীক্ষাসূচি ঘোষণা

বুধবার বিভিন্ন দপ্তরের সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সাংবাদিক বৈঠকে বলেন, গাছ লাগানো, গাছের গুঁড়ি দিয়ে বাঁধের কাজ করার কাজ দ্রুত করে ফেলতে হবে। তিনি বলেন, আগামী ২৬ তারিখ ফের ভরা কোটাল। তার আগে ইয়াসের ফলে ভেঙে যাওয়া বাঁধের কাজ দ্রুত সেরে ফেলতে হবে। তিনি বলেন, বাঁধ মেরামত করার সময়ে ঘাসের মতো একপ্রকার গাছের গুঁড়ি ব্যবহার হোক। এর ফলে সহজে ওই নদীবাঁধ নষ্ট হবে না।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *