Latest News

Popular Posts

ভারত সেরার খেতাব মণিপুরের: অনন্য কৃতিত্ব পদ্মশ্রী বেমবেম দেবীর

ভারত সেরার খেতাব মণিপুরের: অনন্য কৃতিত্ব পদ্মশ্রী বেমবেম দেবীর

Mysepik Webdesk: এককথায় একে বলা যায় ‘মণিপুরের মুকুট রক্ষা’। কারণ ভারতের উত্তর-পূর্বের এই রাজ্যের মহিলা ফুটবল দলটি বৃহস্পতিবার (৯ ডিসেম্বর, ২০২১) কোঝিকোড়ের ইএমএস স্টেডিয়ামে হিরো সিনিয়র মহিলা জাতীয় ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে জয় পেয়েছে। রেলওয়ের বিরুদ্ধে নাটকীয় পেনাল্টি শ্যুটআউটে জয়ের পরে মণিপুর ফের চ্যাম্পিয়ন হয়ে জাতীয় ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের খেতাব ধরে রেখেছে। নির্ধারিত ও অতিরিক্ত সময়ে গোলশূন্য থাকার পর ম্যাচটি পেনাল্টি শ্যুটআউটে। মণিপুর গোলরক্ষক ওকরাম রোশিনী দেবী তিনটি অনবদ্য সেভ করে তাঁর রাজ্যদলকে ২১তম শিরোপা এনে দেন।

এই সাফল্য মণিপুর কোচ ওইনাম বেমবেম দেবীর জন্যও একটি বিশেষ মুহূর্ত ছিল। তিনি একজন খেলোয়াড় হিসাবেও জাতীয় মহিলা চ্যাম্পিয়নশিপের খেতাব জিতেছিলেন। কোচ হিসাবেও তিনি এই সাফল্য পেলেন। বেমবেম দেবী বলেন, “আমি একজন খেলোয়াড় হিসেবে যে শিরোপা জিতেছি তার সঙ্গে এই শিরোপা যোগ করতে পেরে খুবই খুশি। মেয়েরা সত্যিই দারুণ খেলেছে। তারা সফলভাবে শিরোপা রক্ষা করতে পেরেছে বলে আমি গর্বিত।”

বেমবেম দেবী

গোটা খেলায় মণিপুরের আধিপত্য ছিল। কিন্তু রেলওয়ে ডিফেন্সকে তারা ভাঙতে পারেনি। মণিপুরের যাবতীয় আক্রমণ রেলওয়ের ডিফেন্স লাইনে এসে আটকে যাচ্ছিল। একসময় মণিপুরের মেয়েদের দূরপাল্লার বেশ কিছু শট নিতেও দেখা যায়। যদিও তাতে প্রতিপক্ষ গোলরক্ষক স্বর্ণময়ী সামালকে খুব একটা সমস্যায় পড়তে হয়নি।

তবে, টাইব্রেকারে শেষ হাসি হাসেন বেমবেম দেবীর ছাত্রীরাই। টুর্নামেন্টের সেরা গোলরক্ষক হয়েছেন মণিপুরের ওকরাম রোশিনী দেবী। তিনি পেয়েছেন ২৫ হাজার টাকা আর্থিক পুরস্কার। সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কার জিতে তামিলনাড়ুর সন্ধ্যা রঙ্গনাথন-ও পুরস্কার হিসাবে পেয়েছেন ২৫ হাজার টাকা। সবচেয়ে মূল্যবান খেলোয়াড় হিসাবে ২৫ হাজার টাকা পুরস্কারমূল্য জিতেছেন মণিপুরের ইরোম প্রমেশ্বরী দেবী। পুরস্কার বিতরণী মঞ্চে দেখা যায় ভারতীয় ফুটবলের অন্যতম কিংবদন্তি আই এম বিজয়নকে।

টাটকা খবর বাংলায় পড়তে লগইন করুন www.mysepik.com-এ। পড়ুন, আপডেটেড খবর। প্রতিমুহূর্তে খবরের আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুক পেজটি লাইক করুন। https://www.facebook.com/mysepik

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *