পাকিস্তানের ‘ব্রুস লি’ অলিম্পিকে যোগ্যতা অর্জন করতে না পারায় বহু ভক্তের মনখারাপ

Mysepik Webdesk: তিনি আসন্ন টোকিও অলিম্পিকে যোগ্যতা অর্জন করতে পারেননি, কিন্তু তিনি আরও অনেক কৃতিত্ব অর্জন করেছেন। মার্শাল আর্টের ক্ষেত্রে ব্রুস লি-র নাম স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে। স্টান্ট, স্টাইল এবং শৃঙ্খলা ছাড়াও অভিনয়ের ক্ষেত্রেও তিনি যথেষ্ট জনপ্রিয়। তাঁর জায়গায় পৌঁছতে গেলে প্রচুর মানসিক শক্তি, ইচ্ছা এবং শৃঙ্খলার সঙ্গে বছরের পর বছর কঠিন পরিশ্রম প্রয়োজন। তবে একজনকে পাকিস্তানের ‘ব্রুস লি’ বলা হয়। তিনি মুহাম্মদ রশিদ, যিনি ৬২টা রেকর্ড গড়েছেন এবং এগুলোর কোনওটাই সাধারণ মানের রেকর্ড নয়।

আরও পড়ুন: টোকিও অলিম্পিকে ভারতীয় বক্সিং টিমের অন্যতম ভরসা লভলিনাকে চিনে নিন

এহেন মুহাম্মদ রশিদ এই বছরের টোকিও অলিম্পিকে যোগ্যতা অর্জন করতে পারেননি। যা অত্যন্ত দুঃখজনক। তথ্য অনুযায়ী, আর্থিক কারণেই তিনি যথেষ্ট অনুশীলন করার এবং পাকিস্তানকে প্রতিনিধিত্ব করার সুযোগ পাননি। তবে তাঁর কৃতিত্বের পরিধির পরিমাপ করা একপ্রকার অসম্ভব। রশিদের রেকর্ড ভাঙার যাত্রা শুরু হয় ২০১৩ সালে। একটি খেলার অনুষ্ঠানে তিনি এক মিনিটে ৪০টা বোতলের ছিপি খুলে ফেলেছিলেন। এটাই ছিল তাঁর অসম্ভবকে সম্ভব করার সূচনা। পাকিস্তান ছাড়াও বিশ্বের অন্যত্রও তিনি এই মুহূর্তে বেশ জনপ্রিয়। তাঁর কিছু রেকর্ডের মধ্যে রয়েছে— মাথা দিয়ে ১ মিনিটে সবথেকে বেশি তরমুজ ভাঙা, হাত দিয়ে ১ মিনিটে ২৮৪টা আখরোট ভাঙা এবং আগুনের মধ্যে সবথেকে বেশিবার লাঠি ঘোরানোর রেকর্ড। এই মুহূর্তে নানচাকু দিয়ে সবথেকে বেশি বোতলের ছিপি খোলার রেকর্ড তাঁরই অধীনে।

আরও পড়ুন: প্রথম রূপান্তরকামী হিসাবে অলিম্পিক খেলবেন নিউজিল্যান্ডের লরেল হাবার্ড, জারি বিতর্কও

গিনেস তাঁকে বহুবার সম্মানিত করেছে। রশিদ বহু দেশের টিভি অনুষ্ঠানেও এসেছেন। ২০২০ অবধি তাঁর নামের পাশে ৩০টি রেকর্ড ছিল। এই মুহূর্তে তিনি পাকিস্তান অ্যাকাডেমি অফ মার্শাল আর্টস চালান এবং বহু ছাত্রকে প্রশিক্ষণ দেন। রশিদের অনেক ছাত্রছাত্রী তাঁর মতোই অনেক রেকর্ড গড়েছেন। মুহাম্মদ রশিদের ইচ্ছা যে, অবসর নেওয়ার আগে ১০০টি রেকর্ড পূর্ণ করবেন। আশা করাই যায় যে, পাকিস্তানের ‘ব্রুস লি’ খুব শীঘ্রই এই কৃতিত্ব অর্জন করতে পারবেন।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *