বিতর্কিত হারে স্বপ্ন ভেঙে খানখান মেরি কমের

Mysepik Webdesk: অলিম্পিকে সোনা জয়ের স্বপ্ন ভেঙে গিয়েছে মেরি কমের। মেয়েদের ফ্লাইটওয়েট প্রি-কোয়ার্টার ফাইনালে কলম্বিয়ার ইনগ্রিড ভ্যালেন্সিয়ার কাছে হেরে যান ছয় বারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন মেরি কম। যদিও ম্যাচের পরে ভারতীয় এই বক্সিং তারকা জানিয়েছেন যে, আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত ছিল দুর্ভাগ্যজনক। উল্লেখ্য, মেরি কম জানতেন যে, পদক জয়ের থেকে মাত্র এক ধাপ দূরে রয়েছেন। সেই আনন্দে ডোপ টেস্টের জন্য যাচ্ছিলেন তিনি। সেই মুহূর্তে তিনি জানতে পারেন হেরে গেছেন।

আরও পড়ুন: বারমুডার অলিম্পিক জয়ী ফ্লোরা ডাফি: বাষট্টি হাজার মানুষের স্বপ্ন জয়ের কারিগর

প্রসঙ্গত মেরি কম বলেন, “আমি এমন সিদ্ধান্তের কোনও মানে বুঝতে পারছি না। টাস্কফোর্স কোথায় গেল? আমি যখন টাস্কফোর্সের সঙ্গে ছিলাম খেলার উন্নতির জন্য তখন অনেক পরামর্শ দিতাম। আমার সঙ্গে এমনটা ঘটল! আমি যে জিতে গিয়েছি তা ম্যাচের পরেও জানতাম। ডোপ টেস্ট যখন করাতে যাচ্ছিলাম, তখনও জানি যে আমি জিতে গিয়েছি। কিন্তু ওই সময় আমার কোচ বলার পর ভুল ভাঙে আমার। এরপরে আমি প্রাক্তন ক্রীড়ামন্ত্রী কিরেন রিজিজুর টুইটারে পোস্ট দেখি আমি। আমার সঙ্গে অবিচার হল।” উল্লেখ্য যে, মেরি কমের কোচ হলেন ছোটেলাল যাদব। অন্যদিকে, কলম্বিয়ার প্রতিপক্ষ ইনগ্রিড ভ্যালেন্সিয়াকে আগে দু’বার হারিয়েছেন মেরি।

আরও পড়ুন: পদক জয়ের লক্ষ্যে আরও একধাপ উত্থান, কোয়ার্টার ফাইনালে সিন্ধু

ক্ষুব্ধ মেরি কম এই হারের জন্য আম্পায়ারের দিকে আঙুল তুলছেন। তাঁর খেলায় কোথায় যে গলদ ছিল, তা এখনও বুঝে উঠতে পারেননি তিনি। প্রথম রাউন্ডে ছিলেন ৫ জন বিচারক। তাঁদের মধ্যে ৪ জন কলম্বিয়ার ইনগ্রিডকে এগিয়ে রাখেন। মেরির পক্ষে একজন রায় দিয়েছিলেন। এরপর দ্বিতীয় ও তৃতীয় রাউন্ডে ৩ বিচারক মেরিকে এগিয়ে রাখেন। সেই সময় ভ্যালেন্সিয়াকে সমর্থন করেন ২ বিচারক। তবে ঘটনাচক্রে তিনটি রাউন্ড মিলিয়ে তিন বিচারককে পাশে পেয়ে যান কলম্বিয়ার বক্সার। পয়েন্টের নিরিখেও মেরিকে পিছনে ফেলে দেন ভ্যালেন্সিয়া। আম্পায়াররাও জানিয়ে দেন কোনও রকম প্রতিবাদ তাঁরা কর্ণপাত করবেন না। ফলত, দেশের হয়ে শেষ অলিম্পিক খেলতে নামা মেরি কমের অলিম্পিক থেকে সোনা জয়ের স্বপ্ন অধরাই থেকে যায়। যদিও গোটা দেশ মেরির পাশেই রয়েছে। হেরে গেলেও যে মন জয় করে নিয়েছেন মণিপুরের এই কিংবদন্তি বক্সার।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *