বঙ্গে পরাজয় কেন, কারণ খুঁজে পেলেন মোদি-শাহ

Mysepik Webdesk: বাংলায় ডবল ইঞ্জিন সরকার গঠন করার স্বপ্ন কার্যত মাঠে মারা গিয়েছে বিজেপি সরকারের। শুধু তাই নয়, একাধিক পরিকল্পনা করে, নরেন্দ্র মোদি, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ থেকে জেপি নড্ডা দিনের পর দিন বাংলা সফরে এসেও জয়ের কাছাকাছি পৌঁছতে পারেনি গেরুয়া শিবির। অন্যদিকে তৃণমূল সরকার একুশের নির্বাচনে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে বিপুল আসনে জয়লাভ করেছে। এই পরিস্থিতি বাংলায় এই বিপর্যয়ের কারণ জানতে গিয়ে বঙ্গ বিজেপি নেতৃত্বের কাছে একটি রিপোর্ট তলব করেছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। সেই কারণ খুঁজে বার করতে গিয়ে মূলত পাঁচটি বিষয়ের ওপরেই আলোকপাত করেছেন তাঁরা।

আরও পড়ুন: তৃণমূলের ‘নতুন’ মন্ত্রিসভা নিয়ে চিন্তাভাবনা

বিজেপির দাবি, প্রথমত বিজেপি ক্ষমতায় এলে সম্ভাব্য মুখ্যমন্ত্রী কে হতে পারে, তার জন্য কাউকেই সেভাবে দেখতে পাওয়া যায়নি। অর্থাৎ মুখ্যমন্ত্রী মুখের অভাব বড় হয়ে দেখা দিয়েছিল। অমিত শাহ, নরেন্দ্র মোদির বার বার ‘বাংলার ভূমিপুত্রই মুখ্যমন্ত্রী হবে’ বলে দাবি করে আসলেও সেরকম কোনও যোগ্য প্রার্থীকে তারা বাংলার মানুষের সামনে আনতে ব্যর্থ হয়েছে। দ্বিতীয়ত, ধর্মীয় মেরুকরণের পথে চলে সবচেয়ে বড় ভুল করেছে বঙ্গ বিজেপি। বাংলার মানুষ কোনওভাবেই এই বিষয়টিকে ভালোচোখে দেখেনি। সেক্ষেত্রে বাংলার সব ধর্মের মানুষ ঢালাও ভোট দিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেসকে।

আরও পড়ুন: বিশেষ বিমানে দিল্লি গিয়ে বিজেপিতে নাম লিখিয়েছিলেন পাঁচজন, জিতলেন মাত্র একজন

তৃতীয়ত, রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব মনে করেছিল, বাংলার মুসলিম ভোট না পেলেও হিন্দু ভোটের সিংহভাগ নিজেদের ঝুলিতে টেনে বেরিয়ে যাবে। কিন্তু সেক্ষেত্রেও মানুষের কাছে বিশ্বাসযোগ্যতা হারিয়েছে বিজেপি। অন্যদিকে বাংলার একাধিক জায়গায় বৈঠক, মিছিল মিটিং করলেও অধিকাংশ বাঙালিরা বিজেপির হিন্দিভাষী নেতাদের পছন্দ করেনি। এছাড়াও তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করা নেতা-নেত্রীদেরকেও বাংলার মানুষ ভালোভাবে নেয়নি। ভোটের আগে ক্রমাগত পেট্রল-ডিজেল-গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি, দিল্লি বর্ডারগুলিতে কৃষক বিক্ষোভ ক্রমাগত বাংলার মানুষের বিশ্বাসযোগ্যতা হারিয়েছে।

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *