মোহনবাগানের বার্ষিক সাধারণ সভায় বিদেশ থেকে ভয়েস কলে সদস্য সমর্থকদের আন্দোলনে আহ্বান: ময়দানে হঠাৎ চাঞ্চল্য

Mohun Bagan A.C.

Mysepik Webdesk: করোনা পরবর্তী বড় ক্লাবের প্রথম বার্ষিক সাধারণ সভা। দিন কয়েক আগেই ময়দানে এক বড় ক্লাব মহমেডান স্পোর্টিংয়ে ক্ষমতার হাতবদল হয়ে গেছে। তবে সেই রকম আলোড়ন হয়নি, যা এবার তৈরি হয়েছে মোহনবাগান অ্যাথলেটিক ক্লাবের বার্ষিক সাধারণ সভাকে ঘিরে। এই বার্ষিক সভার তাপ এতটাই ছড়িয়েছে, শুক্রবার সন্ধ্যায় মোহনবাগান ক্লাবের তাঁবুতে বসে যায় পুলিশি পাহারা। সূত্রের খবর, এজিএমে সদস্য ছাড়া ক্লাব তাঁবুর ভেতরে যাতে কেউ প্রবেশ করতে না পারে সেই ব্যাপারে সতর্ক দৃষ্টি রাখার কথা ভাবা হচ্ছে।

কিন্তু এই উত্তাপের কারণ কি? এবারের এজিএম বা বার্ষিক সাধারণ সভার ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই এটিকে মোহনবাগান আইএসএলে খেলতে নামবে জামশেদপুর এফসি-র বিরুদ্ধে। আর এই ক্লাবের নামের আগে ‘এটিকে’ শব্দটি নিয়ে ক্লাবের সভ্য সদস্যদের একাংশের তীব্র আপত্তি। এই আপত্তি কার্যত গত দুই সপ্তাহে সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড় উঠেছে ‘রিমুভ এটিকে’ ক্যাম্পেনের মাধ্যমে। এক বিরাট সংখ্যক সদস্য সমর্থক এই দাবির স্বপক্ষে টুইট করেছেন। ফেসবুক পোস্ট করেছেন। অবশ্য শুধুমাত্র সোশ্যাল মিডিয়া নয়, এই আন্দোলনের স্বপক্ষে কলকাতা এবং মোহনবাগান সমর্থক অধ্যুষিত জেলা শহরগুলির রাস্তায় দেখা মিলেছে ফ্লেক্স ও পোস্টার। আবার অনেকেই এটিকে মোহনবাগানের তৃতীয় জার্সি সম্বন্ধে আপত্তি জানিয়েছেন। বেশ কিছু ফ্যান ক্লাবের তরফে আজ গোষ্ঠ পাল সরণিতে এজিএম শুরুর আগে তাঁদের এই রিমুভ এটিকে ক্যাম্পেনের স্বপক্ষে সমবেত হওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে।

তবে এই পর্বে সবথেকে সাড়া ফেলে দিয়েছে সুইডেন এবং আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের দু’টি আন্তজার্তিক নম্বর থেকে ক্লাব সদস্য সমর্থকদের কাছে যাওয়া রেকর্ড করা ভয়েস কল। এই ভয়েস কলে সরাসরি মোহনবাগান অ্যাথলেটিক ক্লাব সভ্য সমর্থকদের জানতে চাওয়া হচ্ছে “কেমন লাগছে কমেন্টেটরদের ‘এটিকে এটিকে’ সম্বোধন? জ্বালা ধরছে না গায়ে? লজ্জা করছে না? মনে পড়ে শিবদাস, অভিলাষদের কথা? যদি ক্লাবকে সত্যিই ভালোবেসে থাকেন, তাহলে ১৩ তারিখ ক্লাবের সামনে আসুন। জবাব চান। বুঝে নিন সব হিসেব তাঁদের থেকে, যাঁরা এখানে দাঁড় করিয়েছেন। দাবি রাখুন, মোহনবাগান যেন আপস না করে আইএসএলে খেলতে পারে।”

এছাড়া আরেকটি পুরুষ কণ্ঠ ভয়েস কল এসেছে কেবলমাত্র ক্লাব সদস্যদের কাছে। অনুরোধ করা হচ্ছে, বার্ষিক সাধারণ সভায় তাঁরা যেন নির্দিষ্ট কিছু প্রশ্ন তোলেন। বলা বাহুল্য, এই হাইটেক প্রচার বেশ সাড়া ফেলে দিয়েছে ময়দান চত্বরে। এখন দেখার বিষয়, এই প্রচার সদস্যদের মধ্যে কতখানি রেখাপাত করে। আজ সকালে ক্লাব সদস্যদের মোবাইলে একটি বাল্ক এসএমএস এসেছে, যাতে সদস্যদের সতর্ক করে কোনও প্ররোচনায় পা না দিয়ে শান্তিপূর্ণ উপায়ে ‘রিমুভ এটিকে’ ক্যাম্পেনের সপক্ষে আওয়াজ তুলতে অনুরোধ করা হয়েছে। প্রসঙ্গত উল্লেখযোগ্য, এ বছর করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে গতবছর পর্যন্ত সদস্য চাঁদা দিয়ে যাঁরা মেম্বারশিপ কার্ড রিনিউ করেছেন, তাঁরাও তাঁদের মেম্বারশিপ কার্ড এবং আইডেন্টিটি কার্ড দেখিয়ে মিটিংয়ে প্রবেশ করতে পারবেন বলে এক প্রেস বিবৃতিতে ক্লাব সচিব সৃঞ্জয় বসু জানিয়েছেন।

Similar Posts:

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *