দর্পচূর্ণ দিল্লির, আইপিএল ফাইনালে মুম্বই

Mysepik Webdesk: দুবাইয়ে আজ ছিল প্রথম বাছাইপর্বের হাইভোল্টেজ ম্যাচ। মুখোমুখি হয়েছিল মুম্বই ইন্ডিয়ন্সএবং দিল্লি ক্যাপিটালস। টস হেরে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে মুম্বই ২০২ রানের টার্গেট দেয় দিল্লিকে। জবাবে ব্যাট করতে নেমে প্রবল ব্যাটিং বিপর্যয়ের মধ্যে পড়ে দিল্লি। কিউয়ি পেসার ট্রেন্ট বোল্ট প্রথম ওভারে খুনে মেজাজ ধারণ করে প্রথম ওভারের দ্বিতীয় এবং পঞ্চম বলে ফেরান পৃথ্বী শ এবং আজিঙ্কা রাহানেকে। দু’জনেই শূন্য রানে ফেরেন। দ্বিতীয় ওভারে দ্বিতীয় বলে বুমরাহের বিষাক্ত ইয়র্কার উড়িয়ে দেয় শিখর ধাওয়ানের উইকেট। দিল্লির স্কোর বোর্ডে তখন ০ রানে ৩ উইকেট। এরপর শ্রেয়স আইয়ার (১২)-ও ফেরেন বুমরাহের বলে। ২০ রানে চার প্রাথমিক ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে ধুঁকতে থাকে দিল্লির ইনিংস।

আরও পড়ুন: আইপিএল থেকে ৬ তরুণ প্রতিভাকে বাছলেন সৌরভ, বিশেষ বার্তা সূর্যকুমারকেও

বুমরাহ ও বোল্টের শুরুর ঝটকায় দিল্লি হারায় ০ রানে ৩ উইকেট

এবারে অস্ট্রেলিয়া সফরে জায়গা পাননি ঋষভ পন্থ। নির্বাচকরা যে একেবারেই ভুল নন, তা আবারও প্রমাণিত হলেন। যখন দিল্লির দরকার ছিল পন্থের কাছ থেকে একটা ভরসাযোগ্য ইনিংস, ঠিক তখনই ক্রুনাল পান্ডিয়ার বল তুলে মারতে গিয়ে মাত্র ৩ রানে আউট হন তিনি। যদিও এরপর উইকেটের অন্য প্রান্তে লড়াই চালাচ্ছিলেন স্টোইনিস। উইকেট পড়তে থাকলেও তিনি ইতিবাচক খেলাটি খেলতে থাকেন।

আরও পড়ুন: করোনার কারণে পিছিয়ে গেল হকি প্রো লিগের দুই ম্যাচ, শীঘ্রই ঘোষণা নতুন তারিখ

ঈশান কিষান অপরাজিত ৩০ বলে ৫৫ রান

মুম্বইয়ের ইনিংসে ঈশান কিষান ৫৫, সূর্যকুমার যাদব ৫১ এবং কুইন্টন ডিকক ৪০ রান করেন। এদিন হার্দিক পান্ডিয়া ছিলেন চেনা ছন্দে। তিনি ১৪ বলে একটি দ্রুত ৩৭ রানের ইনিংস খেলেন। ৫টি ছক্কা দিয়ে সাজানো ছিল তাঁর ইনিংস। দিল্লির পক্ষে রবিচন্দ্রন অশ্বিন ২৯ রানে সর্বোচ্চ ৩ উইকেট নিয়েছিলেন। তিনি ছাড়াও এনরিচ নোর্টজি এবং মার্কাস স্টোইনিস ১টি করে উইকেট নিয়েছিলেন।

আরও পড়ুন: রিপোর্ট নেগেটিভ, জার্মানি থেকে দেশে ফিরলেন ভারতীয় ব্যাডমিন্টন তারকারা

মারমুখী হার্দিক

যদিও মুম্বই শুরুটা ভালো শুরু করেনি। দলগত ১৬ রানের মাথায় অধিনায়ক রোহিত অ্যাকাউন্ট খোলার আগেই আউট হয়ে। এরপরে ডিকক এবং সূর্যকুমার দ্বিতীয় উইকেটের জন্য ৩৭ বলে ৬২ রানের জুটি গড়েন। শেষ অবধি, ঈশান ও হার্দিক ২৩ বলে অপরাজিত ৬০ রানের জুটি গড়ে মুম্বইয়ের স্কোরকে ২০১ রানে নিয়ে যান।

আরও পড়ুন: করোনাকালে প্রথমবার প্রীতি ফুটবল ম্যাচ খেলতে বাংলাদেশ পৌঁছল নেপাল

ফের উজ্জ্বল সূর্য

দিল্লি বোধহয় জবাবে এমন শুরুর কথা কখনও ভাবতেও পারেনি। দল কোনও রানের অ্যাকাউন্ট খোলার আগেই দিল্লি ৩ উইকেট হারিয়ে ফেলে। একসময় ৪১ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে বসে দিল্লি। এরপর ব্যাট হাতে নামেন অক্ষর প্যাটেল। দু’জনে অনবদ্য জুটি গড়ে তোলেন। ১৫ ওভার শেষে দিল্লির রান গিয়ে দাঁড়ায় ৫ উইকেটে ১১২। শেষ ৩০ বলে তখনও দিল্লির দরকার ৮৯। ভয়ডরহীন হয়ে ব্যাটিং করছিলেন মার্কাস স্টোইনিস। তবে ১৬ ওভারে দারুণ অধিনায়কত্বের পরিচয় দেন রোহিত শর্মা। তিনি বল তুলে দেন বুমরাহের হাতে। এসেই প্রথম বলেই তিনি ফেরান বিপজ্জনক হয়ে ওঠা স্টোইনিস। ৪৬ বলে ৬৫ রান করেন মার্কাস। বুমরাহ সেই ওভারেই ফেরান ড্যানিয়েল সামস (০)-কেও। ম্যাচ পরিণত হয় একতরফা অবস্থায়। ৫৭ রানে হেরে যায় দিল্লি। তারা এরপর খেলবে ব্যাঙ্গালোর-হায়দরাবাদের মধ্যে বিজয়ী দলের সঙ্গে।

ছবি সৌজন্য আইপিএল

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *