দুস্থদের মুখে অন্ন তুলে দিতে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিল মুরারইয়ের ‘হেল্পিং হ্যান্ড’

Murarai

Mysepik Webdesk: হেল্পিং হ্যান্ড। অর্থাৎ সাহায্যের হাত। দু’হাত ভরে করোনার এই ক্রান্তিকালে মানুষের পাশে দাঁড়াতে এগিয়ে এলো বীরভূমের মুরারই যুবকবৃন্দের পরিচালনায় হেল্পিং হ্যান্ড গ্রুপ। তাদের উদ্যোগে প্রতিদিন এলাকায় প্রায় ২০০ জন দুস্থ তথা মানসিক ভারসাম্যহীন মানুষের জন্য এক কমিউনিটি কিচেনের আয়োজন করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: ধূমপান ছাড়ার শর্তে মিলবে সেফ হোমে বেড, বিধায়ক নন্দিতা চৌধুরির অভিনব উদ্যোগ

যতদিন লকডাউন চলবে, ততদিন মানুষকে তাঁরা এই পরিষেবা প্রদান করবেন বলে সংস্থার পক্ষ থেকে জানিয়েছেন মহম্মদ ইমতিয়াজ ইসলাম। তাঁর কথায়, “করোনাকালে দুস্থ মানুষের এই দুঃখ মনকে খুবই কাঁদিয়ে তুলেছিল। সেই কারণেই এলাকার মানুষেরা মিলে ঠিক করি দুস্থ এবং মানসিক ভারসাম্যহীন মানুষের পাশে থাকার জন্য কিছু একটা করব। তারপরেই এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়। সঙ্গে রয়েছেন নাসিবুল শেখ, আরিফ শেখ, রেজাউল দফাদার সহ আরও ২৫ জন। প্রত্যেকের নিষ্ঠায় প্রতিদিন আমরা এই কাজ করতে পারছি। স্থানীয় মানুষকেও পাশে পেয়েছি।”

আরও পড়ুন: মুকুলপুত্র শুভ্রাংশুর ফেসবুক পোস্ট ঘিরে জল্পনা! তবে কী তৃণমূলে ফেরার ইঙ্গিত?

এই সংস্থার কর্ণধার মহম্মদ আলি ওরফে ইমতিয়াজ ইসলাম আরও বলেন, “প্রতিদিনই এলাকার নানান প্রান্তের ভবঘুরে মানুষরা দুপুরের খাবার জন্য এলাকায় উপস্থিত হচ্ছেন। তাঁদের মুখে অন্ন তুলে দিতে পেরে আমাদেরও খুব ভালো লাগছে। ভাত, তরকারি, ডিম থাকে খাদ্য তালিকায়। নতুন বাজার, মুরারই হাসপাতাল চত্বর, রেলওয়ে স্টেশন চত্বর প্রভৃতি জায়গায় আমরা গরিব দুস্থদের মাঝে রান্না করা খাবার পৌঁছে দিই। রান্নার উদ্যোগ নিয়েছে আমাদের সংস্থারই সদস্যরা।”

প্রতিদিন টোটো কিংবা ভ্যানে ঘুরে ঘুরে মুরারইয়ের এই সংস্থা মানবিক রূপের পরিচয় দিয়ে চলেছে। এমনকী ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের মোকাবিলায় সমানভাবে পথে নেমেছিল এই সংস্থা। সংস্থার প্রত্যেকের ইচ্ছা, আগামী দিনেও এরকম আরও জনকল্যাণকর কাজে তাঁরা মানুষের পাশে দাঁড়াবেন। কারণ সুখের চেয়ে দুঃখে যে পাশে দাঁড়ায়, সে-ই প্রকৃত বন্ধু। হেল্পিং হ্যান্ড— সংস্থাটির নামকরণ একেবারে যথার্থ।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *