কোভিড-১৯ বৃদ্ধির জন্য কমিশনের অফিসারদের বিরুদ্ধে খুনের মামলা রুজু হওয়া উচিত, মন্তব্য মাদ্রাজ হাইকোর্টের

Madras High Court

Mysepik Webdesk: মাদ্রাজ হাইকোর্ট নির্বাচন কমিশনকে তীব্র সমালোচনা করল। এমনকী একে দেশের কোভিড-১৯’এর দ্বিতীয় তরঙ্গের প্রাদুর্ভাবের জন্য ‘সবচেয়ে দায়িত্বজ্ঞানহীন সংস্থা’ হিসাবে অভিহিত করেছে। আদালত তীব্রভাবে ভর্ৎসনা করে বলেছে, ‘‘একমাত্র নির্বাচন কমিশনই করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের জন্য দায়ী। খুনের মামলা রুজু হওয়া উচিত কমিশনের অফিসারদের বিরুদ্ধে।’’ প্রধান বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় এবং বিচারপতি সেন্থিলকুমার রামমূর্তির একটি বেঞ্চ পিআইএল শুনানির সময় এই মন্তব্য করেন। এই আবেদনে কর্তৃপক্ষের উচিত কোভিড-১৯ বিধি মোতাবেক কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া এবং ২ মে যথাযথ ব্যবস্থা করা উচিত।

আরও পড়ুন: করোনা কেড়ে নিল শাস্ত্রীয় সংগীতের প্রবাদপ্রতিম শিল্পী রাজন মিশ্রর প্রাণ

উল্লেখ্য যে, মাদ্রাজ হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় একপ্রকার হঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, ‘‘সঠিক পদক্ষেপ না নেওয়া হলে ২ মে ভোট গণনা বন্ধ করে দেব।’’ নির্বাচন কমিশনকে হাইকোর্ট একপ্রকার তুলোধোনা করে বলেছেন, ‘‘যখন ভোট প্রচার চলছিল, আপনারা কি তখন অন্য গ্রহে ছিলেন? আদালতের নির্দেশ দিয়েছিল কোভিড প্রোটোকল। তা সত্ত্বেও কমিশন সেসব নিশ্চিত করতে পারেনি। ভোট গণনার দিন কোভিড প্রোটোকল মানা নিয়ে কী চিন্তাভাবনা কমিশন? একটা সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা ৩০ এপ্রিলের মধ্যে জানাতে হবে কমিশনকে।’’

আরও পড়ুন: আগাম নাম রেজিস্ট্রেশন না করালে ১৮ বছর বা তার ঊর্ধ্বরা ভ্যাকসিন পাবেন না

বস্তুত, করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ যখন ভয়ানকভাবে আছড়ে পড়েছে, তখন বিভিন্ন জায়গায় রাজনৈতিক সভা চলেছিল। কীভাবে এইসব রাজনৈতিক সভা-সমাবেশের অনুমতি দিয়েছিল নির্বাচন কমিশন, এই প্রশ্নই করে মাদ্রাজ হাইকোর্ট। আদালত আরও জানিয়েছে যে, সেই সময়তেও কোভিড সংক্রান্ত বিধি মেনে চলার বিষয়টি নিশ্চিত করতে ব্যর্থ হয়েছে কমিশন। আদালতের বলেছে যে, ‘‘সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্য সর্বাগ্রে। সামাজিক দূরত্ববিধি মেনে না চলা গেলে ২ মে ভোটগণনা বাতিলের কথা ভাববে হাইকোর্ট। সাধারণ মানুষকে সুরক্ষিত রাখাটাই অগ্রাধিকার পাবে।’’

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *