ভিডিয়ো কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে অলিম্পিকে যাওয়ার আগে দেশের অ্যাথলেটদের টোটকা দিলেন নরেন্দ্র মোদি

Tokyo Olympics

Mysepik Webdesk: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ভিডিয়ো কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে অলিম্পিকে যাওয়া ভারতীয় দলের সঙ্গে আলাপ করছেন। এতে দীপিকা কুমারী, প্রবীণ যাদব, সানিয়া মির্জা, পি ভি সিন্ধু, নীরজ চোপড়া, দ্যুতি চাঁদ, আশিস কুমার, মেরি কম, মানিকা বাত্রা, ভিনেশ ফোগাট, সজন প্রকাশ এবং মনপ্রীত সিং সহ ১৫ জন খেলোয়াড় অংশ নিয়েছিলেন। প্রধানমন্ত্রী মোদি বলেন, কোনও অ্যাথলেটের ওপর প্রত্যাশার বোঝা চাপানোর দরকার নেই। পুরো ভারত আপনাদের সঙ্গে দাঁড়িয়ে আছে। আপনারা প্রত্যেকেই সাহস করে খেলেন। জাপানে আপনারা নিজেদের দক্ষতার পরিচয় দিন। সকল খেলোয়াড়কে আমার শুভেচ্ছা। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেশের ক্রীড়ামন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর, কিরেন রিজিজু এবং ক্রীড়া সচিব রবি মিত্তাল উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন: অলিম্পিকে পদক জিততেই পারেন ভারতীয় জ্যাভেলিন থ্রোয়ার নীরজ চোপড়া

প্রধানমন্ত্রী মোদি প্রথমে তিরন্দাজ দীপিকা কুমারীর সঙ্গে কথা বলেন। দীপিকা প্রধানমন্ত্রীকে বলেন যে,“আমি বাঁশের ধনুক দিয়ে শুরু করেছিলাম। পরে আধুনিক ধনুক গ্রহণ করেছি। আমার সর্বোচ্চ প্রত্যাশা আমার নিজের ওপরেই থাকবে। কীভাবে অলিম্পিকে ভালো পারফরম্যান্স করা যায়, সেদিকে পুরো ফোকাস থাকবে।” তিরন্দাজ প্রবীণ কুমার যাদব প্রধানমন্ত্রী মোদিকে বলেন, “আগে আমি অ্যাথলেটিক্স করতাম। আমি গভর্নমেন্ট অ্যাকাডেমিতে নির্বাচিত হয়েছি। পরে গেলাম অমরাবতীতে। তারপরে আমি আর্চারি শুরু করি। আমি জানতাম আমাকে শ্রমিক হিসাবে কাজ করতে হবে। তাই আমি খেলাধুলায় কেরিয়ার গড়ার এবং তিরন্দাজি চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।” তাছাড়াও তিনি জানান যে, যখনই সমস্যায় পড়তেন, তখন তার পটভূমির কথা স্মরণ করে নিজেকে উদ্বুদ্ধ করতেন।

আরও পড়ুন: ছয় মেরে টি-২০’তে ১৪ হাজার রানের মাইলস্টোন গড়লেন ক্রিস গেইল

নীরজ চোপড়া বলেন যে, “আমি ভারতীয় সেনা পছন্দ করি। জাভেলিনে দুর্দান্ত পারফর্ম করার পরে তিনি ভারতীয় সেনাবাহিনীতে অ্যাপয়েন্টমেন্ট পেয়েছিলাম। আমি সেনাবাহিনীর কাছ থেকে দারুণ সমর্থন পাচ্ছি। কিছুদিন আগে আমার চোট লেগেছে। আঘাত খেলাধুলার একটি অঙ্গ। চোটের কারণে আমি বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে যেতে পারিনি। সেই কারণেই আমার এক বছর নষ্ট হয়েছে। তবে, আমি কঠোর পরিশ্রম করে ফিরে এসেছি। কঠোর পরিশ্রমের ফলে আমি অলিম্পিকে যোগ্যতা অর্জন করেছি।”

দ্যুতি চাঁদ বলেন, “আমার একটি বড় পরিবার ছিল। কিন্তু প্রবল দারিদ্র্যের কারণে ঠিকমতো খেতে পারতাম না। আমি জানতাম যে, আমি যদি খেলাধুলা করি তবে আমি একটি চাকরি পাব এবং আমার পরিবারের আর্থিক অবস্থার উন্নতি হবে। আমার জীবনে সর্বদা বিতর্ক ছিল। তবে আমার লক্ষ্য সবসময়ই অলিম্পিক পদক। আমি দ্বিতীয়বার অলিম্পিকে অংশ নিচ্ছি এবং আমি এতে ১০০% দেব।”

উল্লেখ্য যে, ভারত থেকে প্রথম ব্যাচে খেলোয়াড়রা ১৭ জুলাই টোকিওর উদ্দেশ্যে রওনা হবে। ২৩ জুলাই থেকে অলিম্পিক শুরু হচ্ছে। এই বছর ভারত থেকে অলিম্পিকে যাচ্ছেন ১২৬ জন খেলোয়াড়ের একটি দল, যা ভারত থেকে অলিম্পিকে পাঠানো সর্বকালের সবচেয়ে বড় দল। ভারতীয় ক্রীড়াবিদরা ১৮টি খেলার ৬৯টি ইভেন্টে অংশ নেবেন। প্রধানমন্ত্রী সম্প্রতি অলিম্পিকের জন্য খেলোয়াড়দের নানান সুযোগ-সুবিধা দিয়েছেন। তিনি ক্রীড়াবিদদের রেডিয়ো প্রোগ্রাম ‘মন কি বাতে’র মাধ্যমে উৎসাহিতও করেছিলেন। এর পাশাপাশি তিনি দেশের মানুষকে আন্তরিকভাবে ভারতীয় ক্রীড়াবিদদের সমর্থন করার জন্য আবেদন করেছিলেন।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *