সৌরজগতে ‘জীবাশ্মের’ খোঁজে নাসার নতুন মিশন ‘লুসি’

Mysepik Webdesk: চাঁদ, মঙ্গলের পর এবার সৌরজগতে জীবাশ্মের খোঁজে নতুন মিশন শুরু করল আমেরিকার মহাকাশ গবেষণাকেন্দ্র নাসা। সেই উদ্দেশ্যেই শনিবার একটি মহাকাশযান উৎক্ষেপণ করেছে নাসা। এই অভিযানের নাম দেওয়া হয়েছে ‘লুসি’। শনিবার আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার কেপ ক্যানাভেরাল এয়ারফোর্স স্টেশন থেকে গ্রিনিচ সময় সকাল ৯টা ৩৪ মিনিটে উৎক্ষেপণ করা হয় লুসিকে। এই মিশনটি সংগঠিত হয়েছে বোয়িং করপোরেশন ও লকহিড মার্টিন করপোরেশনের যৌথ উদ্যোগে।

আরও পড়ুন: অতি ছোট, ক্ষমতায় সূর্যেরও বেশি

নাসা জানিয়েছে, মহাকাশযানটি সৌরজগতের সবচেয়ে বড় গ্রহ বৃহস্পতির দিকে অগ্রসর হবে। মূলত বৃহস্পতির কক্ষপথে প্রদক্ষিণ করা গ্রহাণুগুলিকে মধ্যে দুটি গুচ্ছের জন্ম গ্রহের খণ্ডিতাংশ থেকে। এই গুচ্ছগুলোতেই অনুসন্ধান চালাবে লুসি। নাসার বিজ্ঞানীদের ধারণা, প্রথিবীর জন্মের সময়েই ওই গ্রহাণুগুলোর জন্ম হয়েছে। পরবর্তীকালে পৃথিবী থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গ্রহাণুগুলি বৃহস্পতির দিকে সরে গিয়ে বর্তমানে বৃহস্পতির কক্ষপথে প্রদক্ষিণ করছে। ওই গ্রহাণুগুলোয় অনুসন্ধান চালালে পৃথিবীর বুকে প্রাণ সৃষ্টি সম্পর্কে অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জানা যেতে পারে বলে মনে করছেন বিজ্ঞানীরা।

আরও পড়ুন: হ্যাকারদের থাবা থেকে বাদ যাচ্ছে না স্মার্ট টিভিও, কিভাবে সুরক্ষিত রাখবেন?

নাসা জানিয়েছে, লুসি ১২ বছর ওই অনুসন্ধানের কাজ চালাবে। এই সময়ে মহাকাশযানটি বৃহস্পতিকে প্রদক্ষিণকারী সাতটি গ্রহাণুতে কাজ করবে। নাসার গবেষকেরা ধারণা করছেন, গ্রহাণুগুলো কার্বন যৌগ দিয়ে তৈরি। এগুলো পৃথিবীতে প্রাণের সঞ্চার ও জৈব পদার্থের উৎস সম্পর্কে নতুন ধারণা দিতে পারবে। লুসি মিশনে ওই গ্রহাণুগুলো ছাড়াও সৌরজগতের প্রধান গ্রহাণু বেল্ট ডোনাল্ড জনসনও পর্যবেক্ষণ করা হবে। লুসির মিশনের পথ এমনভাবে নির্ধারণ করা হয়েছে, যাতে মহাকাশ পরিভ্রমণ শেষে এটি পৃথিবীতে ফিরে আসবে।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *