চাঁদের গুহায় জলের সন্ধান দিল নাসা-র ‘সোফিয়া’

Mysepik Webdesk: সূর্যের আলো চাঁদের যে অংশে পৌঁছায়, সেই অংশে জলের অস্তিত্বের সন্ধান পেল নাসার স্ট্র্যাটোস্ফেরিক অবজার্ভেটরি ফর ইনফ্রারেড অ্যাস্ট্রোনমি (SOFIA)। যুগান্তকারী এই আবিষ্কারের ফলে গোটা উপগ্রহেই মাটির নীচে জলের অস্তিত্ব রয়েছে বলে জানিয়েছে আমেরিকার গবেষণা কেন্দ্র নাসা। নাসা জানিয়েছে, চাঁদের ক্ল্যাভিয়াস গহ্বরে জলের অণু পাওয়া গিয়েছে। চন্দ্রপৃষ্ঠে বিজ্ঞানীরা এর আগে হাইড্রোজেনের রূপান্তরিত নমুনার সন্ধান পেলেও জলের অনুর সন্ধান পাননি।

আরও পড়ুন: বিভিন্ন জায়গা থেকে যন্ত্রাংশ জোগাড় করে আস্ত বাইক বানিয়ে ফেললেন সাইকেল মিস্ত্রি

বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, সাম্প্রতিক অনুসন্ধানে চন্দ্রপৃষ্ঠের ওই অংশে তাঁরা প্রায় ১২ আউন্স পরিমাণ জলের সন্ধান পেয়েছে। নেচার অ্যাস্ট্রোনমি নামে একটি জার্নালে এই খবর প্রকাশিত হয়েছে। নতুন এই জলের সন্ধানে স্বাভাবিকভাবেই বিজ্ঞানীরা আশ্চর্য হয়ে গেছেন, কীভাবে বাতাসহীন চন্দ্রপৃষ্ঠের গহ্বরে এই জলের অস্তিত্ব টিকে রয়েছে। এই ঘটনার পরেই নাসার আর্তেমিস প্রকল্পে ২০২৪ সালে চাঁদে প্রথম এক নারী ও তার পরে এক পুরুষকে পরীক্ষামূলক বসবাসের জন্য পাঠানোর আগে চন্দ্রপৃষ্ঠে জলের অস্তিত্ব সম্পর্কে আরও তথ্য পেতে উদ্যোগী হয়েছে সংস্থা।

আরও পড়ুন: মহাকাশে স্পেস সেন্টার বানাচ্ছে ন্যাটো, লক্ষ রাশিয়া-চিন

১৯৬৯ সালে প্রথম চাঁদের অভিযান সেরে পৃথিবীতে ফিরে আসেন কয়েকজন অভিযাত্রী। তাঁরাই জানান, চাঁদে জলের কোনও অর্তিত্ব নেই। সম্পূর্ণ শুস্ক চন্দ্রপৃষ্ঠ। এরপর গত ২০ বছর ধরে চাঁদকে প্রদক্ষিণকারী একাধিক কৃত্রিম উপগ্রহ এবং অন্যান্য অভিযানে জানা গিয়েছে, চাঁদের চিরছায়াচ্ছন্ন মেরু অঞ্চল তুষারাবৃত। শুধু তাই নয়, ভারতের মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্র ইসরো জানিয়েছিল, চাঁদের সূর্যালোকিত অঞ্চল আংশিক দ্রবীভূত থাকার আভাস রয়েছে। তবে সেই তরল জল না কি অন্য কোনও হাইড্রোজেন যৌগ, তা বোঝা যায়নি।

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *