মারাদোনার মৃত্যু বিতর্কে নতুন সংযোজন কন্যার টুইট

Mysepik Webdesk: আর্জেন্টিনার কিংবদন্তি ফুটবলার দিয়েগো মারাদোনার মৃত্যুর পর কেটে গিয়েছে দুই মাসেরও বেশি সময়। তবে তার মৃত্যুকে ঘিরে এখনও তদন্ত চলছে। সেই তদন্তে উঠে আসে নানান সব তথ্য। আগেই তদন্তাধীন ছিলেন চিকিৎসক এবং মনোরোগ বিশেষজ্ঞ। তবে সোমবার আরও তিনজনকে তদন্তের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। পুলিশ সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছে, দুই নার্স এবং এক মনোবিদকে তদন্তের জন্য অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। স্নায়ু বিশেষজ্ঞ ডক্টর লিওপল্ডো লুকি এরই মধ্যে তদন্তাধীন।

আরও পড়ুন: বেইতিয়ার সঙ্গে ছবি পোস্ট করে তুরসানোভের মন্তব্য, ‘একদিন নিশ্চয়ই আমরা আবার একই দলে খেলব’

উল্লেখ্য যে, ২৫ নভেম্বর হৃদ্‌রোগের আক্রান্ত হয়ে প্রয়াত হয়েছিলেন মারাদোনা। ৬০ বছর বয়সি মারাদোনার ব্রেন সার্জারি হয়েছিল। সার্জারির দুই সপ্তাহ পরে তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল। তার কিছুদিনের মধ্যেই ইন্দ্রপতন ঘটে। তারপরেই এই ফুটবল কিংবদন্তির মৃত্যু ঘিরে নানান চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে আসে। উঠে আসে চিকিৎসকদের গাফিলতির কথা। মৃত্যু নিয়ে শুরু হয় তদন্ত। যদিও মারাদোনার কন্যারা তদন্তে অবহেলার অভিযোগ করেন।

আরও পড়ুন: উত্তরাখণ্ডের তুষার ধসে বিপর্যস্ত মানুষের পাশে ঋষভ পন্থ, দিলেন ম্যাচ ইংল্যান্ড ম্যাচের ফি

গতকাল, ৯ ফেব্রুয়ারি দিয়েগো-কন্যা জিয়ান্নিনা মারাদোনা একটি আবেগ মাখা টুইটে লেখেন— “বেশ কয়েক বছর ধরে আমার বাবাকে কেবলমাত্র দোষারোপ করা হত। যেন তাঁর থেকে খারাপ মানুষ আর কেউ নেই। তাঁর বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কগুলো নিয়ে সবসময়ই মেতে থাকত সংবাদমাধ্যম। এসব সহ্য করতে হত আমাদের, যাঁদের পদবি এখনও মারাদোনা। দিনের পর দিন আমার বাবাকে এভাবে যাঁরা কাঠগড়ায় তুলেছেন, সেইসব মানুষের বিচার কারা করবে? কোনও টিভি চ্যানেল ওঁদের নিয়ে কি বিচারসভা বসাবে?”

আরও পড়ুন: দুই গোল তিন পয়েন্ট: খুশির হাওয়া সবুজ মেরুন মহলে

ইতিমধ্যেই টুইটটি ভাইরাল হয়েছে। প্রায় ৩৯ হাজার লাইক এবং ২,৬৪২ রিটুইট হয়েছে মারাদোনা-কন্যার এই পোস্টটি। দিয়েগো-প্রেমীরা পাশে দাঁড়িয়েছেন মারাদোনার পরিবারের। কিতানা উইনস নামে একজন লিখেছেন— “জিয়ান্নিনা, ডালমা, ক্লডিয়ার পাশে রয়েছি সব সময়।” মারিয়ানা ময়ানো লিখছেন— “আপনার বাবা যিনি জীবন এবং ফুটবলে পাঠ দিয়েছিলেন। তাঁকে সর্বদা ভালোবাসব।” প্রত্যুত্তরে জিয়ান্নিনা লিখেছেন ‘গ্র্যাসিয়াস’ অর্থাৎ ধন্যবাদ।

আরও পড়ুন: ২২ বছর পর চেন্নাইয়ে টেস্ট হারল ভারত

এদিকে ফুটবল কিংবদন্তির চিকিৎসক লিওপল্ডো লুক মনে করেন না যে, মারাদোনার চিকিৎসায় কোনও ত্রুটি হয়েছে। তাঁকে বাঁচানোর জন্য সর্বাত্মক চেষ্টা করা হয়েছিল। তবুও তাঁর বাড়ি এবং ক্লিনিকটি সার্চ করা হয়েছিল। এখন মারাদোনার জন্য নিযুক্ত দই নার্স এবং এক মনোবিদকেও তদন্তাধীন রাখা হয়েছে। তাঁদের সবাইকে চলতি সপ্তাহেই প্রসিকিউশনের সামনে হাজির হতে হবে। মারাদোনার আইনজীবী মাতিয়াস মোরলা এ-বিষয়ে বিস্তারিত তদন্তের দাবি জানিয়েছেন। মোরলা বলেন, “মারাদোনার বাড়িতে অ্যাম্বুলেন্স পৌঁছতে ৩০ মিনিটের বেশি সময় লেগেছিল।” তিনি চিকিৎসা বিলম্বিত করার সরাসরি অভিযোগ করেছেন।

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *