নরেন্দ্র মোদীকে হারাতে পারেন একমাত্র মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই, ভবানীপুরে প্রচারে অভিষেক

Mysepik Webdesk: ভবানীপুরের উপনির্বাচন নিয়ে এখন উত্তাল রাজ্য রাজনীতি। আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর ভবানীপুর কেন্দ্রে উপনির্বাচন। তৃণমূল প্রার্থী খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই। রবিবার সেই ভবানীপুর কেন্দ্রেই প্রচার সারলেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রচারে এসেই বিজেপিকে একহাত নিলেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির উদ্দেশ্যে তিনি বললেন, “একমাত্র নরেন্দ্র মোদীকে হারাতে পারেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই। কেন্দ্র বহিরাগতদের দিয়ে বাংলা দখল করতে না পেরে এখন বহিরাগত এজেন্সি পাঠাচ্ছে। ৫০০ এজেন্সি পাঠালেও মেরুদণ্ড বিক্রি করব না।”

আরও পড়ুন: বৈশাখীকে বসত বাড়ি বিক্রি করলেন শোভন, মালিকানা পেয়েই রত্নাকে বাড়ি ছাড়ার হুমকি

সরাসরি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে নিশানা করে অভিষেক বলেন, “আমাকে কত নোটিস পাঠাতে পারেন পাঠান। মিজের মেরুদণ্ড বিক্রি করব না। এখনও পর্যন্ত আমাকে ৫টা নোটিশ পাঠানো হয়েছে। নোটিশ পাঠাতে গিয়ে আপনাদের কাগজ-কালি শেষ হয়ে যাবে, তবু জেরা শেষ হবে না। ED-CBI আমার কাঁচকলা করেছে, কাঁচকলা করবে।” পাশাপাশি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের রোম সফরে নিয়ে কেন্দ্রের বাধা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “গোটা দেশ থেকে একমাত্র মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই আন্তর্জাতিক ওই শান্তি সম্মেলনে ডাক পেয়েছিলেন। কিন্তু মোদি সরকার তাঁকে যেতে দিল না। কেন জানেন? কারণ তাহলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যে ওঁর থেকে বেশি জনপ্রিয় হয়ে যাবেন।”

আরও পড়ুন: ঈর্ষার কারণেই রোম সফরে আপত্তি, কেন্দ্রকে তোপ মমতার

প্রসঙ্গত, মুখ্যমন্ত্রীর রোম সফরের প্রস্তুতি শেষ হলেও নবান্নে চিঠি পাঠিয়ে মুখ্যমন্ত্রী রোম সফর বাতিল করার নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। ওই চিঠিতে লেখা হয়েছে, ওই সম্মেলনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অংশ নেওয়া সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। এদিকে কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তকে ঈর্ষার কারণ বলে ব্যাখ্যা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, “ওই অনুষ্ঠানে জার্মান চ্যান্সেলর ছিলেন। পোপ ছিলেন। বিশ্বশান্তির জন্য রোমে এই মিটিং ডাকা হয়েছে। দু’মাস আগে ওঁরা আমার সঙ্গে যোগাযোগ করেছিল। আমাকে বিশেষ ভাবে আমন্ত্রণ জানানো জানিয়েছেন। আজ কেন্দ্র থেকে চিঠি পাঠিয়ে দিয়েছে। এটা পলিটিক্যাল।”

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *