পিএইচডি-মাস্টার্স ডিগ্রি মূল্যহীন, তালিবান শিক্ষামন্ত্রীর দাবিতে বিতর্ক বিশ্বজুড়ে

Mysepik Webdesk: পিএইচডি কিংবা মাস্টার ডিগ্রী, আজকের দিনে কিছুরই প্রয়োজন নেই, কারণ এইসব ডিগ্রি ছাড়াও মুসলিমরা আজ বিশ্বসেরা। আফগানিস্তানে সরকার গঠন করার পরেই তালিবানের নতুন শিক্ষামন্ত্রী শেখ মৌলবি নুরউল্লাহ মুনির এহেন মন্তব্য রীতিমতো বিতর্ক শুরু হয়ে গিয়েছে বিশ্বজুড়ে। একটি সংবাদমাধ্যমে সাক্ষাৎকার দেওয়ার সময় তিনি বলেন, “এখনকার দিনে পিএইচডি কিংবা মাস্টার্স ডিগ্রির কোনও মূল্য নেই। কারণ, মোল্লা ও তালিবান নেতাদের কারও পিএইচডি, মাস্টার্স এমনকী হাইস্কুলের ডিগ্রিও নেই। কিন্তু তারাই বিশ্বসেরা।”

আরও পড়ুন: দখলে এল পাঞ্জশির, দাবি তালিবানের

তালিবান শিক্ষামন্ত্রীর এই মন্তব্যে রীতিমতো শোরগোল শুরু হয়ে গিয়েছে বিশ্বজুড়ে। গত ১৫ অগাস্ট আফগানিস্তান দখল করার পর কিছুদিন অপেক্ষা করে ৭ সেপ্টেম্বর আফগানিস্তানে সরকার গঠন করে তালিবান। শিক্ষামন্ত্রীর পদ গ্রহণ করেন শেখ মৌলবি নুরউল্লাহ মুনি। তাঁর এই মন্তব্যে বিশেষজ্ঞদের একাংশের ধারণা, গত ২০ বছরে আফগানিস্তানে যে নতুন করে শিক্ষাব্যবস্থা গঠিত হয়েছিল, তা শীঘ্রই তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়বে। জানা গিয়েছে, ইতিমধ্যেই স্কুল-কলেজে পড়ুয়াদের বসার জায়গায় ছেলে-মেয়েদের আলাদা আলাদা বসার জায়গা চিহ্নিত করে দেওয়া হয়েছে। এমনকি তাদের মাঝে পর্দাও টাঙিয়ে দেওয়া হয়েছে। তাছাড়া স্কুল-কলেজগুলিতে শিক্ষিকা নিয়োগ করার ক্ষেত্রেও রাশ টেনে দেওয়া হয়েছে। মহিলাদের শুধুমাত্র বয়স্ক ও বৃদ্ধাদের প্রাথমিক শিক্ষা দেওয়ার ক্ষেত্রে নিয়োগ করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন: পাকিস্তান-আফগানিস্তান সীমান্তে আত্মঘাতী হামলা, মৃত ৩ পাক আধাসেনা

তাছাড়া আফগানিস্তান দখল করার পর থেকেই আশঙ্কা করা হয়েছিল, সরকার গঠনের পরই শরিয়া আইনে দেশ চালাবে তালিবান। সেই আশঙ্কায় সত্যি হল। তালিবান শাসক সুপ্রিম লিডার হিবাতুল্লাহ আখুন্দজাদা ইতিমধ্যেই জানিয়ে দিয়েছেন, নয়া আফগানিস্তান সরকার পরিচালিত হবে শরিয়া আইনেই। এই শরিয়া আইনের সবচেয়ে ক্ষতিকর বিষয়টি হল, সেখানে মহিলাদের শিক্ষার কমও অধিকার নেই। এবার সেই আশঙ্কাকেই কার্যত সিলমোহর দিলেন আফগানিস্তানের নতুন শিক্ষামন্ত্রী শেখ মৌলবি নুরউল্লাহ মুনি।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *