Latest News

Popular Posts

পাকিস্তানে মুদ্রাস্ফীতি ও দারিদ্র্যের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ অব্যাহত

পাকিস্তানে মুদ্রাস্ফীতি ও দারিদ্র্যের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ অব্যাহত

Mysepik Webdesk: পাকিস্তানে ক্রমবর্ধমান মূল্যস্ফীতি ও দারিদ্র্যের প্রতিবাদে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সরকারের বিরুদ্ধে বিরোধী দলের একটি জোট বড় ফ্রন্ট খুলেছে। পাকিস্তান ডেমোক্রেটিক মুভমেন্টের (পিডিএম) ব্যানারে এই আন্দোলনের অংশ হিসেবে মানুষ রাস্তায় নেমেছে। রাজধানী ইসলামাবাদ, রাওয়ালপিন্ডি, লাহোর, করাচি, পেশোয়ার এবং কোয়েটার মতো গুরুত্বপূর্ণ শহরে বিক্ষোভ চলছে। প্রশাসন মোবাইল এবং ইন্টারনেট বন্ধ করে দিয়েছে। এ কারণে শহরগুলোতে বিপুল সংখ্যক পুলিশ ও আধাসামরিক বাহিনী মোতায়েন করেছে সরকার। বিক্ষোভকারীদের পথ আটকাতে যানবাহন, কন্টেইনার এবং ব্যারিকেড লাগানো হয়েছে। লাহোরে শুক্রবার গভীর রাতে একটি বিক্ষোভের সময় সংঘর্ষে দুই পুলিশসহ চারজন নিহত হন। পিডিএম-এর অধীনে পাকিস্তান মুসলিম লিগ নওয়াজ এবং জামাত-উলেমা-ই-ইসলাম ফয়েজ এই বিক্ষোভের নেতৃত্ব দিচ্ছে। রাওয়ালপিন্ডি, লাহোর এবং ইসলামাবাদেও মেট্রো বাস পরিষেবা স্থগিত করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: অনাহারে মৃত্যু উঃ কোরিয়ায়, তবুও ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষায় ব্যয় হচ্ছে ২৪ হাজার কোটি টাকা

ইসলামাবাদ এবং লাহোরের মতো বড় শহরগুলিতে পুলিশ এবং আধাসামরিক বাহিনী ব্যারিকেড স্থাপন করে বিক্ষোভকারীদের পথ আটকে দেয়। লাহোরে ঢোকা ও বেরোনোর সমস্ত পথ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে, পাঞ্জাব সরকার বিক্ষোভে জড়িত বিরোধী দল তেহরিক-ই-লাব্বাইক পাকিস্তানের (টিএলপি) সঙ্গে আলোচনার জন্য একটি কমিটি গঠন করেছে। এছাড়াও পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) করাচিতে ইমরান খানের সরকারের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছে। সিন্ধু প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী সৈয়দ মুরাদ আলিও এতে অংশ নেন।

আরও পড়ুন: রাষ্ট্রসংঘের সভায় মাইক বিভ্রাটের শিকার হলেন ভারতীয় কূটনীতিবিদ প্রিয়াঙ্কা সোহনি

ইসলামাবাদের আরেক ব্যক্তি বিক্ষোভকে সমর্থন করে বলেন, ইমরান খান প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শোচনীয়ভাবে ব্যর্থ হয়েছেন। তাঁকে পদত্যাগ করতে হবে। তাঁর আমলে স্বস্তি পায়নি সাধারণ মানুষ। ইমরান খান ক্ষমতায় এসে যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, তা পূরণ হয়নি। শুধু মূল্যস্ফীতি আর দারিদ্র্যের কষাঘাতে মানুষ রাস্তায় নেমে এসেছে। সবাই এখন ইমরান খানের সরকারকে গদিচ্যুত করতে ঐক্যবদ্ধ। অন্যদিকে, মুসলিম লিগ নওয়াজের মরিয়ম আওরঙ্গজেব, যিনি রাওয়ালপিন্ডিতে বিক্ষোভে বসেছিলেন, তিনি বলেছেন, পাকিস্তানের আইন-শৃঙ্খলাও ভেঙে পড়েছে। দারিদ্র্যের কারণে মানুষ আত্মহত্যা করতে বাধ্য হচ্ছে। আজ, পাকিস্তানের ৬০ শতাংশের বেশি জনসংখ্যা দারিদ্র্যসীমার নিচে বাস করছে। জনগণকে রাস্তায় নামতে হবে। সরকার বিরোধিতা অব্যাহত থাকবে।

টাটকা খবর বাংলায় পড়তে লগইন করুন www.mysepik.com-এ। পড়ুন, আপডেটেড খবর। প্রতিমুহূর্তে খবরের আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুক পেজটি লাইক করুন। https://www.facebook.com/mysepik

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *