শীতলকুচির ঘটনায় হাইকোর্টে জনস্বার্থ মামলা

Highcourt

Mysepik Webdesk: শনিবার রাজ্যের চতুর্থ দফার ভোটে শীতলকুচির জোড়পাটকির ১২৬ নং বুথে শনিবার সকালে ভোট শুরু হওয়ার কিছু পরেই আচমকা কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানদের বিরুদ্ধে ভোটারদের লক্ষ করে এলোপাথাড়ি গুলি চালানোর অভিযোগ ওঠে। গুলি লেগে মৃত্যু হয় চার জনের। অভিযোগ, প্রায় ৩০০ জন দলীয় কর্মী কেন্দ্রীয় বাহিনীকে ঘিরে ঘরে তাদের রাইফেল কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। তাই প্রাণ বাঁচাতে বাধ্য হয়ে ওই কর্মীদের লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে কেন্দ্রীয় বাহিনী। একই দাবি করে নির্বাচন কমিশনও। যদিও এই দাবি মানতে নারাজ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর দাবি, ইচ্ছাকৃতভাবে এই ঘটনা ঘটানো হয়েছে। এই ঘটনাকে তিনি একপ্রকার ‘গণহত্যা’ বলে ব্যাখ্যা করেন।

আরও পড়ুন: চাঁদে গিয়ে লুকোলেও টেনে আনবে বিজেপি, জলপাইগুড়িতে মিঠুন

এদিকে শীতলকুচির ঘটনা নিয়ে সোমবার একটি জনস্বার্থ মামলা দায়ের করা হয়েছে কলকাতা হাইকোর্টে। সোমবার সেই মামলা দায়ের করেছে কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি আমিন উদ্দিন খান। ঐদিন কেন কেন্দ্রীয় বাহিনীকে গুলি চালাতে হয়েছে, ঠিক কী ঘটেছিল ওই দিন, তা জানতেই এই জনস্বার্থ মামলা দায়ের করা হয়েছে। ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্তেরও দাবি করেছেন তিনি। পাশাপাশি মৃতদের পরিবার যাতে দ্রুত ক্ষতিপূরণ পায় সেই বিষয়টিও নিশ্চিত করতে অনুরোধ করেছেন তিনি।

আরও পড়ুন: দেশ জুড়ে মহিলাদের উন্নয়ন কর্মসূচি আটকে গিয়েছে বাংলায়, কল্যাণীর সভা থেকে নরেন্দ্র মোদি

অন্যদিকে ওই ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ একটি বিতর্কিত মন্তব্য করেছেন তিনি একটি জনসভায় বলেন, “আপনারা সবাই সকাল সকাল গিয়ে লাইন দিয়ে ভোট দিন। প্রতিটি বুথে সেন্ট্রাল ফোর্স থাকবে। কেউ যদি গায়ের জোর দেখায়, তাহলে ভয় পাবেন না, কারণ আমরা আছি। আর বেশি বাড়াবাড়ি করলে জায়গায়-জায়গায় শীতলকুচি হবে।” তাঁর এই মন্তব্য করার কারণে ইলেকশন কমিশনের দ্বারস্থ হয়েছে তৃণমূল।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *