করোনার কাছে হার মানলেন প্রখ্যাত পরমাণুবিজ্ঞানী শেখর বসু

Sekhar Basu

Mysepik Webdesk: কোভিডযুদ্ধে হার মানলেন প্রখ্যাত পরমাণুবিজ্ঞানী ও দেশের পরমাণু শক্তি কমিশনের প্রাক্তন চেয়ারম্যান শেখর বসু। দিন কয়েক আগেই কোভিড পজিটিভ হন শেখর বসু। তাঁকে কলকাতার এক বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। তাঁর কিডনিরও কিছু সমস্যা ছিল। বৃহস্পতিবার ভোর ৫টা নাগাদ হাসপাতালেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬৮ বছর। ভারতে পরমাণু শক্তি নিয়ে গবেষণার অন্যতম এই পথিকৃতের প্রয়াণের খবরে শোকের ছায়া দেশের বিজ্ঞানীমহলে। তাঁর মৃত্যুতে শোকাহত সহকর্মী থেকে প্রাক্তন ছাত্র ও অগণিত অনুরাগী।

আরও পড়ুন: মহিলাদের সঙ্গে অভদ্রতা করলেই অপরাধীর ছবি-সহ পোস্টার লাগানো হবে শহরজুড়ে, নির্দেশ যোগী আদিত্যনাথের

দেশের প্রথম পরমাণু শক্তিচালিত সাবমেরিন ‘আইএনএস অরিহন্ত’-এর মূল স্থপতি হিসেবে শেখর বসুর নাম থেকে যাবে। পরমাণু গবেষক হিসেবে তিনিই ওই সাবমেরিনের জটিল রিঅ্যাক্টরগুলি তৈরি করেছিলেন। জীবনব্যাপী গবেষণার স্বীকৃতি হিসেবে ২০১৪ সালে ‘পদ্মশ্রী’ পান।

আরও পড়ুন: রাফাল যুদ্ধবিমান চালাবেন যে মহিলা পাইলট, প্রকাশ্যে এল তাঁর নাম

শেখর বসুর ছাত্র জীবন কাটে বালিগঞ্জ গভর্নমেন্ট স্কুলে। এরপর তিনি ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে চলে যান মুম্বইতে। ইঞ্জিনিয়ারিং পাশ করার পর তিনি ভাবা অ্যাটমিক রিসার্চ সেন্টারে গবেষণার কাজে যোগ দেন। পরবর্তী সময়ে বার্ক-এর অধিকর্তাও হয়েছিলেন। কিন্তু পরমাণু শক্তি কমিশনের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পেয়ে সেই পদ ছেড়ে দেন তিনি। এক সময়ে দেশের পরমাণু শক্তি মন্ত্রকের সচিবের দায়িত্বও পালন করেছেন। দেশে পরমাণু বর্জ্য নিষ্কাষণের নতুন পদ্ধতি উদ্ভাবন ও বিভিন্ন পরমাণু চুল্লি নির্মাণেও গুরুত্বপূর্ণ অবদান ছিল তাঁর।

তাঁর মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করে বিজ্ঞানী সোমক রায়চৌধুরী বলেছেন, ‘শেখরবাবু অরিহন্তের রূপকার ছিলেন। পাশাপাশি পরমাণু শক্তি মন্ত্রকে থাকাকালীন তিনি ‘সার্ন’-এর প্রকল্পে ভারতের অংশগ্রহণের বিষয়টি নিয়ে আলোচনায় এবং মহাকর্ষীয় তরঙ্গ অনুসন্ধান সংক্রান্ত প্রকল্প ‘লাইগো’-তেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।’

Similar Posts:

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *