আছড়ে পড়বে যশ, যুদ্ধকালীন তৎপরতায় উপকূলবর্তী এলাকা থেকে সরানো হচ্ছে বাসিন্দাদের

Mysepik Webdesk: দিঘা থেকে আর মাত্র ৩৭০ কিলোমিটার দূরে অবস্থা করছে ঘূর্ণিঝড় যশ। যশের গতিপথ ওড়িশার দিকে হলেও ঘূর্ণিঝড়ের গতিপ্রকৃতি দেখে বিশেষজ্ঞরা ধারণা করছেন, দুই মেদিনীপুর, দুই চব্বিশ পরগণা ছাড়াও ঝাড়গ্রামের গোপীবল্লভপুর, সাঁকরাইল, নয়াগ্রাম, রামনগর এলাকাগুলিতে ব্যাপক ঝড়বৃষ্টি হতে পারে। ইতিমধ্যেই নবান্ন থেকে জেলাশাসকের কাছে নির্দেশ গিয়েছে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য।

আরও পড়ুন: কথা রাখলেন মমতা, পশ্চিমবঙ্গের প্রতিটি পরিবারপিছু দেওয়া হবে ৫০০ টাকা

গতবছর আমফানের থেকে শিক্ষা নিয়ে এই বছর নিরাপত্তার বিষয়ে আর কোনও খামতি রাখতে চায় না রাজ্য সরকার। ইতিমধ্যেই পুরুলিয়ার নির্দিষ্ট কিছু অংশে মানুষকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে ফেলা হয়েছে। পাশাপাশি পশ্চিম বর্ধমান, বাঁকুড়া, বীরভূমের একাংশে বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে, এই আশঙ্কায় সেখানকার বেশ কিছু এলাকার বাসিন্দাদেরকেও অন্যত্র সরিয়ে ফেলা হয়েছে। শুধু তাই নয়, দক্ষিণ চব্বিশ পরগণার ঘোড়ামারা, নামখানা, গঙ্গাসাগর থেকে অন্তত ১ লক্ষ ৯৫ হাজার মানুষকে ত্রাণ শিবিরে সরানো হয়েছে।

আরও পড়ুন: দিঘা থেকে মাত্র ৪২০ কিলোমিটার দূরে যশ, কতটা প্রভাব বাংলায়?

বুধবার দুপুরের মধ্যেই অতি শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় হিসেবে যশ দিঘা ও পারাদ্বীপের মাঝামাঝি অঞ্চল অতিক্রম করবে। ওই অঞ্চলের কোনও একটি এলাকায় ল্যান্ডফল করতে পারে ঘূর্ণিঝড়টি। ইতিমধ্যেই দিঘা, হলদিয়া, নামখানায় সমুদ্রের জল ফুঁসতে শুরু করে দিয়েছে। প্রবল বৃষ্টির ফলে বন্যা পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে, এমন জেলাগুলি থেকেও বাসিন্দাদের নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে ফেলার কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে। সেচ দফতরের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে সংশ্লিষ্ট জেলার জেলাশাসকদের।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *