‘সৌমিত্র চট্টোপাধায়ের প্রয়াণ পশ্চিমবঙ্গ-সহ ভারতের এক অপূরণীয় ক্ষতি’ বাংলায় টুইট করলেন প্রধানমন্ত্রী

Mysepik Webdesk: ৮৫ বছর বয়সে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন বাংলার চলচ্চিত্র জগতের অশীতিপর অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়। তাঁর মৃত্যুতে শোকাহত তাঁর বহু ভক্ত। শোক প্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। মুখ্যমন্ত্রীর পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীও একটি টুইট করে শোক প্রকাশ করলেন। আগাগোড়া বাংলায় একটি টুইট করে তিনি নানান, “শ্রী সৌমিত্র চট্টোপাধায়ের প্রয়াণ চলচ্চিত্র জগত, পশ্চিমবঙ্গ সহ ভারতের সাংস্কৃতিক পরিমন্ডলে এক অপূরণীয় ক্ষতি। তাঁর কাজের মধ্যে বাঙালির চেতনা, ভাবাবেগ ও নৈতিকতার প্রতিফলন পাওয়া যায়। তাঁর প্রয়াণে আমি শোকাহত। শ্রী চট্টোপাধ্যায়ের পরিবার ও অনুরাগীদের সমবেদনা জানাই। ওঁ শান্তি।”

আরও পড়ুন: সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ মুখ্যমন্ত্রীর

১৯ জানুয়ারি, ১৯৩৫ সালে জন্মগ্রহণ করেছিলেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়। অভিনয় ছাড়াও আবৃত্তি শিল্পী হিসেবেও তাঁর নাম অত্যন্ত সম্ভ্রমের সঙ্গেই উচ্চারিত হয়। সত্যজিৎ রায় পরিচালিত ৩৪টি সিনেমার মধ্যে ১৪টিতে অভিনয় করেছেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়। এছাড়াও থিয়েটার জগতেও তিনি এক উল্লেখযোগ্য নাম। ১৯৫৯-এ সত্যজিৎ রায়ের ‘অপুর সংসার’ ছবি দিয়ে সিনেমা জগতে পা রাখেন সৌমিত্রবাবু। তিনি এর আগে রেডিয়োর ঘোষক ছিলেন এবং মঞ্চে ছোট চরিত্রে অভিনয় করতেন। ১৯৭৪ সালে রিলিজপ্রাপ্ত ‘সোনার কেল্লা’ ছবিতে সত্যজিৎ রায়ের নিজের সাহিত্য সৃষ্ট ফেলুদা চরিত্রে অভিনয় করে সাড়া ফেলে দিয়েছিলেন স্টুডিয়ো পাড়ার পুলুদা ওরফে সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়। ১৯৮০-তে মুক্তিপ্রাপ্ত সত্যজিৎ রায়ের ছবি ‘হীরক রাজার দেশে’-তে উদয়ন পণ্ডিতের ভূমিকায় সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের অভিনয় আজও ভুলতে পারে না চলচ্চিত্র মহল থেকে দর্শকমণ্ডলী। ‘শাখা প্রশাখা’ (১৯৯০) চলচ্চিত্রে এই কালজয়ী পরিচালকের সঙ্গে সৌমিত্রবাবু শেষবারের মতো অভিনয় করেন।

Similar Posts:

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *