রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে জিতে শেষ আটে স্পেন ও সুইজারল্যান্ড

সায়ন ঘোষ

গতকালের প্রথম ম্যাচটি ছিল আট গোলের থ্রিলার। এই থ্রিলার ম্যাচটি শেষপর্যন্ত জিতল স্পেন। এদিন ৪-৩-৩ ছকে দল নামায় স্পেন। গোলে উনাই সিমোনে। রক্ষণভাগে আজপিলিকুয়েতা, গার্সিয়া, লাপোর্তা, হোসে গ্যায়া। মিডফিল্ডে ফেড্রিক, বাসকোয়েট, কোকে। আপফ্রন্টে সারাবিয়া, মোরাতা, তোরেস। ক্রোয়েশিয়া দল নামায় ৪-৩-৩ ছকে। গোলে লিকাভোভিচ। রক্ষণভাগে হুরানোভিচ, ভিদা, সেল্টাকার, জিভার্দিওল। মাঝমাঠে মডরিচ, ব্রোজোভিচ, কোভাকিচ। আপফ্রন্টে ভোলাসিচ, পেটকোভিচ, রেবিচ।

আরও পড়ুন: ফুটবল পরিসরে উপেক্ষিত দুই ইতালীয় ‘তরুণে’র গল্প

Spain predicted starting 11 vs Croatia - Euro 2020

ম্যাচের ২০ মিনিটে স্প্যানিশ গোলরক্ষক উনাই সিমোনের অমার্জনীয় ভুলে ১-০ গোলে এগিয়ে যায় ক্রোটরা। ৩৮ মিনিটে সারাবিয়া সেই গোল শোধ করে। এরপর একের পর এক আক্রমণ শানাতে থাকে স্পেন। ম্যাচের ৫৭ মিনিটে আজপিলিকুয়েতা ও ৭৭ মিনিটে ফিও তোরেসের গোলে ৩-১ লিড নেয় স্পেন। কিন্তু থ্রিলার তখনও বাকি ছিল। সের্জিও র‍্যামোসের মতো ডিফেন্ডারকে বাদ দেবার ফল এইবার হাড়ে হাড়ে টের পায় স্পেন।

আরও পড়ুন: দেশ, সীমান্ত এবং মিলখা সিংয়ের রূপকথা

৮৫ মিনিটে ওরিসিচ গোল করে ৩-২ করে। ৯০ মিনিটে পালাসিচ গোল করে ক্রোয়েশিয়াকে লড়াইয়ে ফিরিয়ে আনে। এই দু’টি গোল খাবার জন্য স্পেনের ডিফেন্ডাররা কিছুটা দায়ী থাকবে। লিড পেয়েও তা ধরে রাখতে পারেনি স্পেন। মাঝমাঠে লুকা মডরিচ লড়াই করে ক্রোয়েশিয়াকে ফিরিয়ে আনে। কিন্তু অতিরিক্ত সময়ে আর লড়াই দিতে পারেনি ক্রোয়েশিয়া। ম্যাচের ১০০ মিনিটে মোরাতার বিশ্বমানের গোল ও ১০৩ মিনিটে ওইরাবালের দুর্দান্ত ফিনিশে স্পেন শেষ অবধি ম্যাচ জেতে ৫-৩ গোলে। তবে এদিন স্পেনকে চিন্তায় রাখবে তাদের ডিফেন্স ও মোরাতার পারফরম্যান্স।

আরও পড়ুন: লিয়েন্ডার পেজ ৪৮: এক ইতিহাসের মুখোমুখি

অন্যদিকে, দ্বিতীয় খেলাটি আরও উত্তেজক পরিস্থিতির সৃষ্টি করে। এদিন ফ্রান্স দল নামায় ৩-৫-২ ছকে। গোলে হুগো লরিস। রক্ষণভাগে ভারানে, কিম্বাপে, ল্যানগ্লেট। মাঝমাঠে পাভার্ড, কান্তে, পোগবা, গ্রিজম্যান, রিওবিট। আপফ্রন্টে বেনজেমা ও এমবাপে। সুইশরা দল নামায় ৩-৪-১-২ ছকে। গোলে সমার। রক্ষণভাগে এলভেদি, আকেঞ্জি, রড্রিগেজ। মাঝমাঠে জুবের, শাকা, ফ্রিওলের, ওয়াইডমের। অ্যাটাকিং মিডিও জেরদান শাকিরি। আপফ্রন্টে সেফেরোভিচ ও এমবোলো।

আরও পড়ুন: লেন্সের ভিতর থেকে বিশ্বজয় দর্শন: স্মৃতির সফরে শ্রেণিক শেঠ

ম্যাচের ১৫ মিনিটে সেফেরোভিচের গোলে লিড নেয় সুইশরা। কিন্তু ফরাসিদের ম্যাচে ফিরিয়ে আনে করিম বেনজেমা। ৫৭ ও ৫৯ মিনিটে গোল করেন তিনি। ৭৫ মিনিটে পল পোগবার গোলে ৩-১ গোলে এগিয়ে যায় ফ্রান্স। কিন্তু ৮১ মিনিটে ফের সেফেরোভিচ একটি গোলশোধ করে দেন। ৯০ মিনিটে গেভরানোভিচ ৩-৩ করেন। এরপর অতিরিক্ত সময়ে খেলার ফলাফল অমীমাংসিত থাকে। অবশেষে টাইব্রেকারে ক্রোয়েশিয়ার সবাই গোল করলেও ফ্রান্সের এমবাপের শট সেভ হয়। এরফলে ৫-৪ গোলে জিতে শেষ আটে চলে যায় সুইশরা।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *