রাজ্য বেলাগাম করোনা পরিস্থিতি, কড়া পদক্ষেপের পথে রাজ্য, টুইটে বার্তা মুখ্যমন্ত্রীর

mamata

Mysepik Webdesk: মারণ ভাইরাস ফের তাঁর মরণ কামড় বসিয়েছে দেশজুড়ে। ফলে তীব্র গতিতে বেড়ে চলছে আক্রান্তের সংখ্যা। দেশের অন্যান্য রাজ্যগুলির পাশাপাশি পশ্চিমবঙ্গেও করোনা পরিস্থিতি খুব খারাপ হচ্ছে দিন দিন। দৈনিক সংক্রমণের সংখ্যাও দিন দিন বেড়েই চলেছে। এ পর্যন্ত সাড়ে আট হাজারের গণ্ডি ছাড়িয়েছে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা। এদিকে সমস্ত হাসপাতালে বেড ভর্তি। চারিদিকে অপ্রতুল জীবনদায়ী ওষুধ। এই পরিস্থিতিতে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন যে রাজ্য সরকার করোনা মোকাবিলায় প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নিচ্ছে। এদিন সকালে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পরপর দুটি টুইট করেন। সেখানে তিনি জানান, আজ অর্থাৎ সোমবার দুপুর ২টোয় সাংবাদিক বৈঠক করে রাজ্যের মুখ্যসচিব বাংলার সার্বিক করোনা পরিস্থিতি নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ তথ্যা জানাবেন।

আরও পড়ুন: করোনা নিয়ন্ত্রণে কেন্দ্রের অসহযোগিতা, কেন্দ্রকে চিঠি মমতার

এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর প্রথম টুইট লেখেন, ‘গোটা দেশ জুড়ে # COVID19 সংক্রমণের ব্যাপক বৃদ্ধির মধ্যে পশ্চিমবঙ্গ সরকার জনগণের সুরক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় সকল পদক্ষেপ নিচ্ছে। আমি প্রধানমন্ত্রীর কাছে অতিরিক্ত ওষুধ এবং প্রয়োজনীয় ভ্যাকসিন দিয়ে সাহায্য করার আর্জি জানিয়েছি।’ তিনি তাঁর দ্বিতীয় টুইট লেখেন, ‘আমি সমস্ত উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাকেও বিস্তৃত ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য এবং সর্বস্তরে # COVID19 পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য প্রতিটি স্তরে তাদের প্রচেষ্টা আরও বাড়ানোর জন্য নির্দেশনা দিয়েছি। রাজ্যের মুখ্য সচিবসহ প্রধান কর্মকর্তারা দুপুর ২টোয় সাংবাদিক বৈঠক করে সেই বিষয়ে বিস্তারিত ব্যাখ্যা দেবেন।’

আরও পড়ুন: ‘পাঁচ দফা ভোটে ১৮০ আসনের মধ্যে ১২৫ আসন পাব’, আশাবাদী দিলীপ ঘোষ

এদিকে, করোনা নিয়ন্ত্রণে কেন্দ্রের অসহযোগিতার অভিযোগ তুলে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি লেখেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ওই চিঠিতে তিনি উল্লেখ করেন, রাজ্যে করোনা নিয়ন্ত্রণে কেন্দ্রের ভূমিকা মোটেই আশাপ্রদ নয়। শুধু তাই নয়, রাজ্যে পর্যাপ্ত পরিমান ভ্যাকসিন মিলছে না বলেও তিনি ওই চিঠিতে উল্লেখ করেন। পাশাপাশি কেন্দ্রের তরফে রাজ্যে পর্যাপ্ত পরিমাণ রেমডিসিভির, অক্সিজেন এবং অন্যান্য ওষুধপত্র পাঠানো হচ্ছে না বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *