সীমান্তে আটক পাকিস্তানি পায়রার কাছ থেকে উদ্ধার সন্দেহজনক সাদা কাগজ

Pigons

Mysepik Webdesk: কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ভোট প্রচারে এসে সীমান্তের নজরদারি প্রসঙ্গে বলেছিলেন― এমন ব্যবস্থা হবে যে, পাখিও গলতে পারবে না। আক্ষরিক অর্থেই তাই ঘটল। একটি পায়রার বিরুদ্ধে চরবৃত্তি ও সীমান্তে অনুপ্রবেশের দায়ে এফআইআর করা হল।

আরও পড়ুন: রাজ্যের হাসপাতালগুলোকে সুরক্ষার ক্ষেত্রে আরও কড়া হতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

পাকিস্তানের সীমান্ত থেকে ৫০০ মিটার রোরানওয়ালা সীমান্তের কাছে কনস্টেবল নীরজ কুমার সেনাঘাঁটি পাহারা দিচ্ছিলেন। ঠিক সেই সময় নীরজ কুমারের কাঁধে এসে পায়রাটি বসে। তিনি পায়রাটিকে বন্দি করেন এবং ঘাঁটির কমান্ডার ওমপাল সিংকে খবর দেন। তারপর পায়রাটিকে তল্লাশি করে পাখির পায়ে টেপ দিয়ে আটকানো একটি সাদা কাগজ পান তাঁরা। টেপে একটি নম্বর লেখা পাওয়া গিয়েছে।
ঘটনাটি ঘটেছে ১৭ এপ্রিল রাতে। এরপর অমৃতসরের কাহাগড় থানায় পায়রাটির বিরুদ্ধে এফআইআর করা হয়। এফআইআরে উল্লেখ করা হয়েছে যে, পায়রাটি গায়ের বর্ণ সাদা এবং মাথার অংশ কালো। সঙ্গে পাওয়া সাদা কাগজটির কথাও উল্লেখিত হয়েছে। সন্দেহ করা হচ্ছে পাক সেনা পায়রাটির মাধ্যমে গুপ্তচরবৃত্তি চালাবার চেষ্টা করেছে।

আরও পড়ুন: মানবিক! চুরি করা বাক্সে কোভিড ভ্যাকসিন দেখে ফিরিয়ে দিয়ে গেল চোর

অবশ্য এইরকম গুপ্তচরবৃত্তি প্রথম নয়। জম্মু ও কাশ্মীরের কাঠুয়া আন্তর্জাতিক সীমান্তের কাছে ২০২০-র মে মাসে আর একটি পায়রা ধরা পড়েছিল। হীরানগর সেক্টরের ময়নারি গ্রামের বাসিন্দারাই পায়রাটিকে ধরে নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে তুলে দেন। বাসিন্দারা সন্দেহ করেছিল, পায়রাটি পাকিস্তান থেকে ভারতে উড়ে এসেছে। সেই পায়রাটি গুপ্তচরবৃত্তিতে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত বলেই মনে করেছিলেন নিরাপত্তা বাহিনী, কারণ পায়রাটি একটি ‘কোডেড বার্তা’ বহন করছিল।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *