বোলারদের দাপটে সুবিধাজনক জায়গায় টিম ইন্ডিয়া

CHEG

Mysepik Webdesk: অ্যাডিলেডে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ডে-নাইট টেস্ট ম্যাচটি ভালো যাচ্ছে না পৃথ্বী শ-র। প্রথমে তিনি শূন্য রানে আউট হন। তারপরে অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিংয়ের সময় তিনি মার্নাস লাবুশানের সহজ ক্যাচ মিস করেন। অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিংয়ের সময় ২৩তম ওভারে বোলিং করছিলেন জসপ্রীত বুমরাহ। স্ট্রাইকে ছিলেন লাবুশানে। বুমরাহের শর্ট ডেলিভারিতে লাবুশানে একটি মিসটাইম শট খেলেন, যা সরাসরি পৃথ্বী শ-র কাছে যায়, ক্যাচের সহজ সুযোগ মিস করেন পৃথ্বী।

আরও পড়ুন: ‘মনে হল দ্বিতীয়বার পা হারিয়েছি’: কৃষকদের সমর্থনে পদক ফিরিয়ে বললেন প্যারা অ্যাথলেট মুকেশ কুমার

https://twitter.com/ICC/status/1339896670687907844?s=20

সেই সময় মার্নাস লাবুশানে সেই সময় ২১ রানে ব্যাট করছিলেন। সেই লাবুশানের ইনিংস শেষপর্যন্ত গিয়ে থামে ৪৭ রানে। ১১৯ বল খেলেন তিনি। বলা যায়, অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে একটা গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস উপহার দেন এই ‘ক্যাঙারু’ ব্যাটসম্যান। তবে অধিনায়ক বিরাট কোহলি পৃথ্বীর উপর যে খুব একটা সন্তুষ্ট ছিলেন না, বোঝা যাচ্ছিল তাঁর আচরণেই।

https://twitter.com/ICC/status/1339875097587269632?s=20

যাই হোক, আজ দিনের শুরুতে কোনও প্রতিরোধ গড়ে উঠতে পারেননি ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা। এদিন মাত্র ৪.১ ওভারে শেষ হয়ে যায় ভারতের প্রথম ইনিংস। দিনের প্রথম ওভারেই প্যাট কামিন্সের আউট সুইং বুঝতে পেরে উইকেটরক্ষক টিম পেইনের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন (১৫)।

এর পরের ওভারে মিচেল স্টার্কের অফ স্ট্যাম্পের একটি বল অহেতুক খোঁচা লাগিয়ে ৯ রানে আউট হন ঋদ্ধিমান সাহা। এরপর উমেশ যাদব ৬ এবং মহম্মদ শামি শূন্য রানে আউট হন। এই দুই টেলএন্ডার ব্যাটসম্যানের উইকেট শিকার করেন স্টার্ক এবং কামিন্স। বুমরাহ চার রানে অপরাজিত থাকেন। ভারতের ইনিংস শেষ হয় ৯৩.১ ওভারে ২৪৪ রানে। মিচেল স্টার্ক ৪টি এবং প্যাট কামিন্স ৩ উইকেট নিয়েছিলেন।

আরও পড়ুন: কুস্তি বিশ্বকাপে রুপোর পদক জিতলেন ভারতের অংশু মালিক

এরপর ভারতীয় বোলারদের প্রশংসা করতে হয়। বুমরাহ-শামি-উমেশ সমৃদ্ধ ভারতীয় পেস ব্যাটারি একপ্রকার মাটি ধরিয়ে দেন অজি ব্যাটসম্যানদের। দুই অজি ওপেনার ম্যাথু ওয়েড এবং জো বার্নসকে প্যাভিলিয়ন পাঠান বুমরাহ। দুই ওপেনারই করেন ৮ রান। এরপর বল হাতে ভেলকি দেখান অশ্বিনও। তিনি ১ রানে ফেরান অস্ট্রেলিয়ার তুরুপের তাস স্টিভ স্মিথকে। ক্রমে ভয়ানক হয়ে ওঠেন অশ্বিন। ট্রাভিস হেড (৭) এবং অভিষেক ঘটানো ক্যামেরুন গ্রিন (১১)-কে ফেরান এই চেন্নাইয়ান।

অশ্বিন এই ইনিংসে চার অজি ব্যাটসম্যানকে শিকার করেন। একপ্রকার একার হাতেই প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা করেন অজি অধিনায়ক টিম পেইন। তিনি সপ্তম হাফসেঞ্চুরি পূর্ণ করে ৭৩ রানে অপরাজিত রয়ে যান। ব্যাগি গ্রিনদের প্রথম ইনিংস শেষ হয় ১৯১ রানে। উমেশ এবং বুমরাহ পান ৩টি এবং ২টি উইকেট।

৫৩ রানের অতি গুরুত্বপূর্ণ লিড পেয়ে ভারত দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করে। যদিও পৃথ্বী শ আবারও ফ্লপ করলেন। চার রানে স্টার্কের বলে ফের বোল্ড হন তিনি। দ্বিতীয় ইনিংসে পৃথ্বীর আউট দেখে মনে হচ্ছিল যেন প্রথম ইনিংসের রিপ্লে দেখছি। ব্যাট আর পায়ের মাঝখানে বিরাট গ্যাপই শত্রু হয়ে উঠছে পৃথ্বীর। নাইট ওয়াচ ম্যান হিসাবে বুমরাহকে নামান কোহলি। মায়াঙ্ক আগরওয়াল অপরাজিত হাজেন ৩ রানে। দ্বিতীয় দিনের শেষে ভারত এগিয়ে ৬২ রানে। কাল তৃতীয় দিন ভারতশুরু করবে স্কোরবোর্ডে ৯/১ রান নিয়ে। এই অবস্থায় বলাই যায় যে, সুবিধাজনক জায়গায় ভারত।

ছবি আইসিসি

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *