সেবক-রংপো টানেলে ভয়াবহ ধস, মৃত ২ শ্রমিক, আহত ৫

Mysepik Webdesk: বুধবার রাত থেকেই গোটা পশ্চিমবঙ্গজুড়ে শুরু হয়েছে অঝোরে বৃষ্টি। উত্তরবঙ্গের দার্জিলিং, কালিম্পং, আলিপুরদুয়ার, কোচবিহার ও জলপাইগুড়িতে ভারী বৃষ্টিপাত হয়েছে। বৃষ্টি হয়েছে পাশের রাজ্য সিকিমেও। এরই মধ্যে কালিম্পঙে ঘটে গিয়েছে এক ভয়ঙ্কর দুর্ঘটনা। সেবক-রংপো রুটের ভালুখোলার কাছে রেললাইনের কাজ চলাকালীন টানেলের ভেতর ধস নেমে মাটি চাপা পড়ে মৃত্যু হয়েছে ২ শ্রমিকের। এছাড়াও আরও ৫ শ্রমিক মারাত্মকভাবে আহত হয়েছে। তাদের মধ্যে দু’জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। আহতদের উত্তরবঙ্গের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: মাধ্যমিক-উচ্চমাধ্যমিকের ফল ঘোষণা জুলাইয়ের মধ্যে, জানালেন মমতা

বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রেলমন্ত্রী থাকাকালীন সেবক-রংপো রুটের রেলপথের সূচনা করেন। সেই রেললাইনের কাজ চলছিল জোরকদমে। বৃহস্পতিবার একটানা বৃষ্টি হওয়ার ফলে পাহাড়ের মাটি আলগা হয়ে এই ধস নামার ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, ৭ জন শ্রমিক ঐসময় টানেলের ভেতর কাজ করছিলেন। আচমকা ধস নামার ফলে তারা টানেলের ভেতর থেকে বেরিয়ে আসতে পারেনি। দুর্ঘটনা ঘটার পরেই তাদের উদ্ধার করে কালিম্পং জেলা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই দুই শ্রমিককে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়। বাকি পাঁচজনকে পরে একটি বেসরকারি হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়।

আরও পড়ুন: বাংলা দখলের পর এবার তৃণমূলের লক্ষ্য কোন কোন রাজ্য?

উল্লেখ্য, আকাশপথ এবং সড়ক পথের পাশাপাশি এবার রেলপথে শিলিগুড়ি থেকে সেবক হয়ে থেকে সরাসরি সিকিমে পৌঁছে যাওয়ার জন্য জোরকদমে চলছে রেল লাইন পাতার কাজ। সেবক রোড থেকে রাংপো পর্যন্ত মোট ৩৮.৫৫ কিলোমিটার দূরত্বের ওই রাস্তার মধ্যে ৩.৪১ কিলোমিটার রাস্তা সিকিমের অন্তর্গত আর বাকিটা পশ্চিমবঙ্গের মধ্যেই পড়ছে। দীর্ঘদিন ধরে জমিজটের কারণে কাজ আটকে থাকলেও ফের নতুন করে জোরকদমে কাজ শুরু হয়েছে। মোট ৩৮.৫৫ কিলোমিটার যাত্রাপথে থাকছে চোদ্দটি টানেল এবং উনিশটি রেলব্রিজ। ৫টি ডিভিশনাল জঙ্গলের মধ্যে দিয়ে তৈরি হচ্ছে রেলপথ। ওই রুটের বেশিরভাগ রাস্তাই জঙ্গলের মধ্যে দিয়ে যাবে। পাহাড়ের মধ্যে দিয়ে মোট ১৪ টি টানেল তৈরি করে হয়েছে। এর মধ্যে তারখোলার কাছে সবথেকে বড় টানেলটি ৫ কিলোমিটারেরও বেশি লম্বা। সবচেয়ে ছোট টানেল ৫৩৮ মিটার। সেবক থেকে রাংপো পর্যন্ত মোট পাঁচটি স্টেশন তৈরি করা হচ্ছে। স্টেশনগুলি হল যথাক্রমে সেবক, রিয়াং, তিস্তা, মল্লি এবং শেষ স্টেশন রাংপো। পশ্চিমবঙ্গের অংশে থাকছে সেবক, রেয়াং ও তিস্তা বাজার স্টেশন। বাকীগুলি পড়ছে সিকিমে। টানেলের ভেতরে কংক্রিটের আস্তরণ বানাতে সুইডেন থেকে আনা হয়েছে বিশেষ যন্ত্র। সেই কাজ চলাকালীনই এই দুর্ঘটনা ঘটল।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *