ভারতে না আসুক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী, দাবিতে সেদেশের সংসদ সদস্যদের চিঠি দেবেন কৃষকরা

Mysepik Webdesk: তিনটি কৃষি আইন নিয়ে গত ২৮ দিন ধরে দিল্লির সীমান্তে কৃষক ও সরকারের মধ্যে আলোচনা হলেও, হয়নি কোনও সুরাহা। এমন পরিস্থিতিতে কৃষকরা আন্দোলন আরও তীব্র করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন এবং এর পরিকল্পনাও করা হয়েছে। এদিকে কৃষকদের আন্দোলনের আঁচ যাতে সরকারের কাছে পৌঁছয়, সেই কারণে হরিয়ানাকে টোলমুক্ত করতে এবং ইংল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে ভারতে আসা থেকে বিরত করার জন্য সংসদ সদস্যদের কাছে একটি চিঠি লেখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

আরও পড়ুন: লখনউয়ে কৃষকদের সমর্থনে আধা দিবস অনশন ভারতীয় জন নাট্য সংঘের, থাকবেন লেখক-শিল্পী-সমাজকর্মীরাও

তাছাড়াও ২৬, ২৭ ও ২৮ ডিসেম্বর তিনদিন হরিয়ানা টোল প্লাজা ফ্রি করে দেবেন কৃষকরা, এমন হুংকার দিল্লির সিঙ্ঘু সীমান্ত থেকে দিয়েছেন তাঁরা। গৃহীত কৃষি আইন নিয়ে আন্দোলন জারি রাখা কৃষকরা গত ২৫ নভেম্বর থেকে তাঁদের আন্দোলন আরও তীব্র করে তুলেছেন। তাঁরা কৃষি আইনের বিরুদ্ধে ‘দিল্লি চলো’ পদযাত্রার ডাক দিয়েছিলেন। কৃষকরা আশঙ্কা করছেন, এই আইনগুলি কৃষি মান্ডিগুলি দুর্বল করে দেবে এবং কৃষকরা ন্যূনতম সহায়তা মূল্য (এমএসপি)-ও পাবেন না। এর ফলে কর্পোরেট সংস্থা শোষণ করবে কৃষকদের।

আরও পড়ুন: করোনা-মাসে ক্রিসমাস: রাঁচির আর্চবিশপ জানালেন গরিবের সেবা করে উদ্‌যাপন করুন উৎসব

এই পরিস্থিতিতে কৃষকরা ইংল্যান্ডের সংসদ সদস্যদের কাছে চিঠি দেবেন এবং তাঁদের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে কৃষকদের সমর্থনে প্রজাতন্ত্র দিবস অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়া থেকে বিরত থাকার জন্য আবেদন করা হবে। উল্লেখ্য যে, ২৬ জানুয়ারি প্রজাতন্ত্র দিবস উপলক্ষে অতিথি হয়ে উপস্থিত থাকার আমন্ত্রণ মোদি সরকারের থেকে গ্রহণ করেছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। তাছাড়াও আগামী ২৬-২৭ ডিসেম্বর ইংল্যান্ডে ভারতীয় দূতাবাসের সামনে এই ইস্যুতে বিক্ষোভ দেখাবেন প্রবাসী পঞ্জাবিরা। এ-কথা জানিয়েছেন কৃষকনেতা কলওয়ান্ত সিং সাধু। কৃষক আন্দোলন নিয়ে এমনিতেও চাপে কেন্দ্রীয় সরকার। এরপর এই ইস্যু কেন্দ্রীয় সরকারের ওপর আন্তর্জাতিক চাপ সৃষ্টি করতে চলেছে বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল।

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *