‘ল্যাবেই তৈরি হয়েছে করোনাভাইরাস, আমার কাছে প্রমান আছে’- চিনের ভাইরাস বিশেষজ্ঞের দাবিতে তোলপাড় বিশ্ব

Mysepik Webdesk: চিন সরকারের নেতৃত্বে চিনের ইউহান শহরের গবেষণাগারেই তৈরি করা হয়েছে করোনাভাইরাস। এই বিষয়ে তাঁর কাছে যথেষ্ট বৈজ্ঞানিক প্রমান রয়েছে বলে দাবি করেছেন চিনের হংকং স্কুল অফ পাবলিক হেলথ সংস্থার ভাইরাস বিশেষজ্ঞের লি মেং ইয়ান। একদা হংকংয়ে কর্মরত ওই ভাইরাস বিশেষজ্ঞের আরও দাবি, চিনের মূল ভূখণ্ড থেকে সার্সের যে খবর মিলছে সেই বিষয়ে নজরদারি করার সময় তিনি একটি গোপন অভিযানের হদিশ পান। একপ্রকার নিশ্চিত হয়েই তিনি আরও জানান, জনসমক্ষে ঘোষণা করার আগে থেকেই করোনা সংক্রমণের বিষয়ে জানত চিনা সরকার।

আরও পড়ুন: চিনের নজরদারিতে রয়েছে মোদি, মমতা, সোনিয়া-সহ একাধিক হাই প্রোফাইল ব্যক্তিরা, চাঞ্চল্যকর রিপোর্ট

এরপরেই তিনি নিজেকে চিনে সুরক্ষিত মনে না করায় আমেরিকা চলে যেতে বাধ্য হন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একটি গোপন জায়গা থেকে ব্রিটিশ টক শো-কে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, গত ডিসেম্বর থেকে জানুয়ারির শুরুর মধ্যে চিনে নতুন এক ধরণের নিউমোনিয়ার উপর তিনি দুটি গবেষণা করছিলেন। সেই গবেষণার ফল তিনি নিজের উর্ধ্বতন আধিকারিককে জমা দিয়েছিলেন। ঘটনাচক্রে তাঁর উর্ধ্বতন আধিকারিক বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শদাতা। তিনি আশা করেছিলেন, চিনা সরকার এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পক্ষ থেকে সঠিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। মেং-এর দাবি, ‘সঠিক ব্যবস্থা’ নেওয়া তো দুরস্ত, উল্টে তাঁকেই বিষয়টি নিয়ে চুপ থাকার জন্য চাপ দেওয়া হয়। এমনকি তাঁকে খুনের ভয়ও দেখানো হয়।

আরও পড়ুন: মঙ্গলবার থেকে আংশিক ভাবে শুরু হতে চলছে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট

তিনি আরও জানিয়েছেন, নববর্ষের সময় চিন থেকে সারা বিশ্বে বিভিন্ন জিনিসপত্র পাঠানো হয়। সেই সময়ই তিনি মুখ খোলার পরিকল্পনা করেন। তিনি জানতেন যে এই ভাইরাস (করোনাভাইরাস) খুবই ভয়ানক। তিনি জানান, তাঁর মুখ খোলার মাসুল অবশ্য তাঁকে দিতে হচ্ছে। ক্রমাগত তিনি ফোন হুমকি পাচ্ছেন। তাঁর কথায়, “আমি জানতাম, যদি আমি বিশ্বকে সত্যিটা না বলি, তাহলে আমি যথেষ্ট অনুুতপ্ত হতাম।”

Similar Posts:

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *