বাজার চলতি স্যানিটাইজারের বিপদ, হয়ে যেতে পারেন অন্ধও

Mysepik Webdesk: করোনা আবহের মধ্যে মানুষের মধ্যে একলাফে বেড়েছে স্যানিটাইজারের ব্যবহার। হাত জীবাণুমুক্ত করার পাশাপাশি নিত্যপ্রয়োজনীয় সবকিছুই জীবাণুমুক্ত করতে স্যানিটাইজার ব্যবহার করা হচ্ছে আজকাল। তবে সেই স্যানিটাইজারের ব্যবহার কতটা সঠিক, তার একটি পরীক্ষা করেছেন কনজিউমার গাইডেন্স সোসাইটি অব ইন্ডিয়া।

আরও পড়ুন: পুরুষদের তুলনায় মহিলাদের ইউমিনিটি অনেক বেশি, গবেষণায় উঠে চাঞ্চল্যকর তথ্য

গবেষকরা জানিয়েছেন বাজার চলতি ১২২টি স্যাম্পেলের মধ্যে ৫টিতে মিলেছে মারণ টক্সিক মিথেনল। তাদের মধ্যে দেখা গেছে ৪৫টি বোতলের ওপরে যা লেখা রয়েছে, তার সঙ্গে বোতলের ভিতর থাকা স্যানিটাইজারের কোনও মিল নেই। তাদের মধ্যে ৪ শতাংশের মধ্যেই রয়েছে বিষাক্ত টক্সিক মিথেনল যাতে ক্ষতি হতে পারে অপটিক নার্ভের। এর ফলে মানুষ অন্ধও হয়ে যেতে পারে। কনজিউমার গাইডেন্স সোসাইটি অব ইন্ডিয়া মুম্বই, থানে, নবি মুম্বই এবং মহারাষ্ট্রের বিভিন্ন জায়গা থেকে স্যাম্পল সংগ্রহ করেছিল। উদ্দেশ্য ছিল, পরীক্ষা করে দেখা বোতলের গায়ে যা লেখা রয়েছে তা আদৌ বোতলের ভেতর রয়েছে কিনা। দেখা গেছে, অনেক কজেটরেই বোতলের ভেতরে রয়েছে চূড়ান্ত ভেজাল।

আরও পড়ুন: ১২ বছর বা তার কম বয়সীদের ক্ষেত্রে মাস্ক পরার নতুন গাইডলাইন দিল হু

কনজিউমার গাইডেন্স সোসাইটি অব ইন্ডিয়া জানিয়েছে ভেজাল স্যানিটাইজারের মধ্যে সাধারণত মেশানো হয় বিষাক্ত মিথানল। এটি লিভারের সঙ্গে মিশে তৈরি করে ফর্মিক অ্যাসিড এবং ফরম্যালডেহাইড। এই ফর্মিক অ্যাসিডের প্রভাবে চোখের দৃষ্টিশক্তি কমে যেতে পারে। এর প্রভাবে মাথা ধরা, ঝিমঝিম ভাব, বমি বমি ভাব, কোমায় চলে যাওয়া, এমনকি মানুষের মৃত্যু পর্যন্ত ঘটতে পারে। CGSI-র মতে স্যানিটাইজারের থেকেও সাবানের ওপর বেশি গুরুত্ব দেওয়া উচিত কিংবা ৬০ শতাংশ অ্যালকহল রয়েছে এমন স্যানিটাইজার ব্যবহার করা উচিত।

Similar Posts:

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *