জীবিত ব্যক্তির ‘মৃতদেহ’ তুলে দেওয়া হল পরিবারের হাতে! তারপর …

Mysepik Webdesk: নিশ্চিত মৃত্যু হয়েছে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ব্যক্তির। পরীক্ষা নিরীক্ষার পর চিকিৎসক পরিবারের হাতে তুলে দিয়েছেন ডেথ সার্টিফিকেট। মৃতদেহ নিয়ে শ্মশানেও পৌঁছে গিয়েছেন পরিবারের লোকজন। দাহ করার আগে স্বামীর মুখ শেষ বারের মতো দেখতে চাইলেন স্ত্রী। আর তাতেই হতবাক মৃতের পরিবারের লোকজন। দেখা গেল মৃতদেহটি আদৌ তাঁর স্বামীর নয়। অন্য কারোর মৃতদেহ প্লাস্টিকে মুড়ে তাদের দেওয়া হয়েছে। চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে বিহারের পটনা মেডিক্যাল কলেজে। আর হাসপাতালের এই ধরণের গাফিলতিতে স্বাভাবিকভাবেই হতবাক রোগীর পরিবারের লোকজন।

আরও পড়ুন: আজ থেকে মহারাষ্ট্রে শুরু ১৫ দিনের ১৪৪ ধারা

পটনার বাসিন্দা বছর ৪০ বছর বয়সী চুন্নু কুমার বেশ কিছুদিন ধরেই পটনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। মাথায় রক্তক্ষরণের কারণে শুক্রবার তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। করোনা টেস্টে তাঁর রিপোর্ট পজিটিভ আসে। সেই কারণেই হাসপাতালের কোভিড ওয়ার্ডে রোগীর আত্মীয়দের প্রবেশ নিষেধ ছিল। চুন্নু কুমারের ভাই ব্রিজ বিহারি দাবি করেন, রবিবার সকালে হাসপাতাল থেকে তাঁকে জানানো হয়, তাঁর ভাইয়ের মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু ব্রিজ বিহারি শনিবার পর্যন্ত জানতেন, তাঁর ভাই মোটামুটি সুস্থই রয়েছেন। ব্রিজ বিহারির কথায়, “হাসপাতাল থেকে একটি কালো প্যাকেটে মুড়ে দেহ আমাদের হাতে তুলে দেওয়া হয়। আমাদের মৃতদেহের মুখ দেখতে নিষেধ করা হয়। নির্দেশ দেওয়া হয়, করোনা পজিটিভ থাকার জন্য দেহ নিয়ে গ্রামেও যাওয়া যাবে না। ডেথ সার্টিফিকেটও হাসপাতাল থেকে দিয়ে দেওয়া হয়।”

আরও পড়ুন: পাঁচ রাজ্যে রেকর্ড করোনা সংক্রমণের

এদিকে মৃতদেহের শেষকৃত্য করার সময় উচ্চতা নিয়ে সন্দেহ হয় চুন্নু কুমারের স্ত্রীর। শেষবার স্বামীর মুখ দেখতে চাইলে তাঁর সেই ইচ্ছা পূরণ করতে মৃতদেহের মুখের ঢাকা খুলে দেওয়া হয়। মুখ দেখেই চমকে ওঠেন চুন্নু কুমারের স্ত্রী। ওই মৃতদেহ আদৌ তাঁর স্বামীর ছিল না। এদিকে তড়িঘড়ি পটনা মেডিক্যাল কলেজে পৌঁছে পরিবারের লোকজন দেখেন বহাল তবিয়তে রয়েছে চুন্নু কুমার। আগের চেয়ে অনেকটা সুস্থও হয়ে উঠেছেন তিনি। এই ঘটনার পর পরই হাসপাতালের হেলথ ম্যানেজারকে কর্তব্যের গাফিলতির জন্য সাসপেন্ড করা হয়। পূর্ণাঙ্গ তদন্তের আশ্বাস দেন স্বাস্থ্য সচিব প্রত্যয় অমৃত। পটনা মেডিক্যালের সুপার আই.এস. ঠাকুর জানান, ঘটনার তদন্তে যাদের না উঠে আসবে, তাদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *