Latest News

Popular Posts

৩০ হাজারেরও বেশি স্যাটেলাইট দিয়ে ঘিরে ফেলা হচ্ছে পৃথিবীকে!

৩০ হাজারেরও বেশি স্যাটেলাইট দিয়ে ঘিরে ফেলা হচ্ছে পৃথিবীকে!

Mysepik Webdesk: গোটা পৃথিবীকে স্যাটেলাইট দিয়ে ঘিরে ফেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মার্কিন ধনকুবের এলন মাস্কের সংস্থা স্টারলিংক। ৩০ হাজারেরও বেশি স্যাটেলাইটের মাধ্যমে পৃথিবীর প্রত্যন্ত অঞ্চলে দ্রুতগতির ইন্টারনেট আনতে চলেছে তাঁর সংস্থা। সংস্থার দাবি, প্রত্যন্ত অঞ্চলগুলিতে যেখানে ফাইবার অপটিকের যোগাযোগ নেই, সেখানেও ৫০ থেকে ১৫০ এমবিপিএস গতিতে ইন্টারনেট পরিষেবা পাবেন বাসিন্দারা। এলন মাস্কের এই প্রজেক্টের নাম দেওয়া হয়েছে স্টারলিংক প্রজেক্ট।

আরও পড়ুন: একটানা ১২ দিন মহাকাশে কাটিয়ে পৃথিবীতে ফিরলেন জাপানের ধনকুবের ইউসাকু মায়েজাওয়া

মার্কিন ধনকুবের এলন মাস্ক ২০১৫ সালে প্রতিষ্ঠা করেন স্পেস এক্স-এর। সংস্থার লক্ষ, চিন-ভারতের মতো এশিয়ার দেশগুলিতে ইন্টারনেট পরিষেবা প্রদান করা। মহাকাশে স্যাটেলাইট পাঠিয়ে মূলত গোটা বিশ্বের ইন্টারনেট বাজার ধরে তাঁর এই প্রকল্পের উদ্দেশ্য। ইতিমধ্যেই হাজারেরও বেশি স্যাটেলাইটে মহাকাশে পাঠিয়েছে স্পেস এক্স। গত ২৯ এপ্রিল মহাকাশে সংস্থাটি ৭টি স্যাটেলাইট একসঙ্গে পাঠিয়েছে। আমরা বর্তমানে ফাইবার ছাড়া জিও স্যাটেলাইটের মাধ্যমে ইন্টারনেট পরিষেবা পেয়ে থাকি। ওই ধরণের স্যাটেলিটগুলি ভূপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ৩৫ হাজার কিলোমিটার ওপরে থেকে পৃথিবীকে প্রদক্ষিণ করে চলেছে। এক্ষেত্রে ইন্টারনেটের স্পিড অনেক কম থাকে ও ল্যাটেন্সি অনেক বেশি হয়। সেই কারণেই ওই স্যাটেলিটগুলি ইন্টারনেট পরিষেবা প্রদানের ক্ষেত্রে খুব একটা জনপ্রিয়ও নয়।

আরও পড়ুন: বিশ্বজুড়ে ‘কিলার রোবট’ নিয়ে বাড়ছে উৎকণ্ঠা, আলোচনা জাতিসংঘে

তবে, এলোন মাস্কের স্টারলিংক প্রজেক্টের ক্ষেত্রে লো অরবিট ব্যবহার করা হবে। এগুলি এমন এক ধরণের স্যাটেলাইট, যা পৃথিবী পৃঠের অনেকটা কাছাকাছি অবস্থান করে। স্যাটেলাইটগুলি একজায়গায় স্থির না থেকে প্রতিনিয়ত তাদের স্থান পরিবর্তন করে। ফলে, গোটা দুনিয়াকে একই সময়ে একই গতির ইন্টারনেট পরিষেবা প্রধান করা সক্ষম হয়। এর ফলে জিও স্যাটেলাইটের সীমাবদ্ধতা সম্পূর্ণরূপে কাটিয়ে হাই স্পিড ইন্টারনেট পরিষেবা দিতে সক্ষম হবে স্টারলিংক প্রজেক্ট। স্টারলিংকের ইন্টারনেটের গতি হবে ১০০ এমবিপিএস -এরও বেশি এবং ল্যাটেন্সি হবে মাত্র ৩১ এমএস -এরও কম। জানা গিয়েছে, ইতিমধ্যেই স্টারলিংক পরিষেবা গ্রহণ করার জন্য ৫ লক্ষ আগাম আবেদনপত্র জমা পড়েছে বলে টুইট করে জানিয়েছেন এলন মাস্ক। এর জন্য প্রতি গ্রাহকের কাছ থেকে ৯৯ ডলার করে অগ্রিম নিয়েছে সংস্থা।

আরও পড়ুন: নতুন প্রজন্মের অগ্নি প্রাইম মিসাইলের সফল পরীক্ষা করল DRDO

এখন প্রশ্ন হল, ইতিমধ্যেই হাইস্পীড ডেটা পরিষেবার জন্য বিশ্বব্যাপী ফাইবার নেটওয়ার্ক বিস্তৃত রয়েছে। তাছাড়া শীঘ্রই 5G পরিষেবাও চলে আসবে বিশ্বের বহু দেশে, যার মাধ্যমে আনলিমিটেড ইন্টারনেট পরিষেবা দেওয়া সক্ষম হবে। তাহলে স্টার্লিংকের প্রয়োজনীয়তা কী? জবাবে বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছেন, পৃথিবীর প্রায় অর্ধেকেরও বেশি মানুষ ইন্টারনের পরিষেবা থেকে বিচ্ছিন্ন। পৃথিবীর প্রত্যন্ত গ্রামগুলিতে এখনও ফাইবার অপটিক কেবল পৌঁছায়নি। ফলে, ওই এলাকাগুলিতে ইন্টারনেটের সুবিধা পাওয়ার জন্য স্টার্লিংকেই একমাত্র ভরসা বলেই মনে করছেন বিজ্ঞানীরা।

টাটকা খবর বাংলায় পড়তে লগইন করুন www.mysepik.com-এ। পড়ুন, আপডেটেড খবর। প্রতিমুহূর্তে খবরের আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুক পেজটি লাইক করুন। https://www.facebook.com/mysepik

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *