Latest News

Popular Posts

কন্যা হয়ে জন্মেছিলেন বলে গোটা দিন না খেয়ে ছিল পরিবার, রাজস্থানের সেই কন্যাই এখন দেশের গর্ব

কন্যা হয়ে জন্মেছিলেন বলে গোটা দিন না খেয়ে ছিল পরিবার, রাজস্থানের সেই কন্যাই এখন দেশের গর্ব

Mysepik Webdesk: তাঁর জন্মের পর পরিবারের সদস্যরা দুঃখ পেয়েছিলেন। সদ্যোজাত কন্যাসন্তান ছিলেন বলে সেদিন খাবারও খাননি পরিবারের অনেকে। এখন সেই কন্যাই তাঁর পরিবারকে সুখী করেছেন। মাইনাস ৩০ ডিগ্রি তাপমাত্রায় পূর্ব আফ্রিকার কিলিমাঞ্জারো পর্বত জয় করেছেন রাজস্থানের সিকারের মেয়ে রজনী চৌধুরি। রজনী ৬৬ ঘণ্টায় ১৯,৩৪১ ফুট আরোহণ সম্পন্ন করেছেন। এহেন রজনীর আরও একটা পরিচয় আছে। তিনি সিকার জেলার ‘বেটি বাঁচাও, বেটি পড়াও’-এর ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডরও।

আরও পড়ুন: নির্ভয়া কাণ্ডের ছায়া রাজস্থানে! ধর্ষণের পর গোপনাঙ্গে প্রবেশ করানো হল ধারালো বস্তু

খান্ডেলার প্রতাপপুরা গ্রামের বাসিন্দা ২৬ বছর বয়সি রজনী চৌধুরি জয়পুরের NIMS বিশ্ববিদ্যালয় থেকে MTech করছেন৷ পর্বতারোহণের প্রতি তাঁর আগ্রহ চিরকালই। তাই বিশ্ববিদ্যালয় নিজেই স্পন্সর করে তাঁকে। রজনী মঙ্গলবার রাতে মাইনাস ৩০ ডিগ্রি তাপমাত্রায় মাউন্ট কিলিমাঞ্জারোর চূড়ায় পৌঁছেছেন। তিনি ২৮ কিমি কভার করেছেন না থেমে, বিরতিহীনভাবে।

রজনী জানান, বাবা-মায়ের বিয়ের ১১ বছর পর তাঁর জন্ম হয়। বাড়ির সবাই পুত্রসন্তানের আশা করেছিল। তাই একটি কন্যাসন্তানের জন্ম হলে দুঃখে একদিন কেউ খাবার খাননি। রজনীর কথায়, যখন তাঁর বয়স ২৪, তখন তিনি তাঁর বাবার কাছে ফ্যাশন ডিজাইনার হওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন। কিন্তু তাঁর ঠাকুমা তাতে পাত্তা না দেননি। তাই স্বপ্ন ভেঙেছিল রজনীর। এর পরে তিনি জুম্বা এবং যোগব্যায়ামের প্রশিক্ষণ নেন। আর এখন তিনি অন্যদের ফিটনেস প্রশিক্ষণ দেন।

আরও পড়ুন: ভারতীয় সমুদ্রের নজরদারির জন্য রাফালে মেরিন এবং F/A-18 সুপার হর্নেটের মধ্যে হবে প্রতিযোগিতা

ইতিমধ্যে অনেক পাহাড় জয় করেছেন তিনি। ২০১৯ সালে তিনি হিমাচল প্রদেশের মানালিতে অটল বিহারী বাজপেয়ী ইনস্টিটিউট অফ মাউন্টেনিয়ারিং অ্যান্ড অ্যালাইড স্পোর্টস থেকে ২৫ দিনের পর্বতারোহণের প্রশিক্ষণ নিয়েছিলেন। এ সময় ১৫,৭০০ ফুট পর্বত চূড়া আরোহণ করা হয়েছিল। বেস ক্যাম্প থেকে হিমবাহ পর্যন্ত ছিল শূন্য ডিগ্রি তাপমাত্রা। ছিল বরফ। যা পেরিয়ে লক্ষ্যে পৌঁছেছিল রজনীর টিম। একইসঙ্গে তিনি গাউডেন্স পেয়েছেন ডিকি ডালমার মতো কিংবদন্তির কাছ থেকেও। ১৯৯৩ সালে ভারতের সর্বকনিষ্ঠ পর্বতারোহী ডিকি ডলমা, যিনি মাউন্ট এভারেস্টে আরোহণ করেছিলেন।

২০২০ সালের নভেম্বরে তিনি উত্তরকাশীতে অবস্থিত ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ মাউন্টেনিয়ারিং থেকে এক মাসের প্রশিক্ষণ নেন। রজনী জানান, এর পর তিনি কিলিমাঞ্জারো এবং মাউন্ট এভারেস্ট পর্বতারোহণের প্রযুক্তিগত টেকনিকের সঙ্গে পরিচিত হন। রজনীর বাবা রতন লাল চৌধুরি জয়পুর গাঙ্গৌরি হাসপাতালের একজন নার্সিং অফিসার এবং মা আঁচি দেবী একজন গৃহিণী। ছোট এক ভাই-বোন লেখাপড়া করছে।

আরও পড়ুন: উত্তরপ্রদেশে বড় চমক কংগ্রেসের, প্রার্থী তালিকায় উন্নাওয়ে ধর্ষিতার মা

রজনী সরকারি স্কুলে মেয়েদের আত্মরক্ষার ট্রেনিং দেন। এরপর পিরিয়ড নিয়ে ছড়িয়ে পড়া সামাজিক কুসংস্কার ও কন্যা ভ্রূণ হত্যা প্রতিরোধে উদ্যোগী হয়ে ক্যাম্পের আয়োজন করে মানুষকে সচেতন করবেন। তাছাড়াও রজনী জানিয়েছেন, তিনি তাঁর বন্ধুদের সঙ্গে হিমাচল প্রদেশ, জম্মু ও কাশ্মীর-সহ অনেক পাহাড়ি এলাকায় পরিচ্ছন্নতা অভিযান চালিয়েছেন। সেখানে আগত পর্যটকদেরও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার বিষয়ে সচেতন করেন রজনী।

টাটকা খবর বাংলায় পড়তে লগইন করুন www.mysepik.com-এ। পড়ুন, আপডেটেড খবর। প্রতিমুহূর্তে খবরের আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুক পেজটি লাইক করুন। https://www.facebook.com/mysepik

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *