মহুয়ার স্বজনপোষনের অভিযোগ ওড়ালেন রাজ্যপাল, ফের রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা প্রসঙ্গে টুইট

Mysepik Webdesk: রাজভবনে পরিবারতন্ত্র চালাচ্ছেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। টুইট করে এমনই অভিযোগ করেছিলেন কৃষ্ণনগরের তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র। রবিবার তিনি রাজ্যপালের উদ্দেশ্যে টুইট করে লিখেছিলেন, “আঙ্কেলজি, আপনি আপনার দুঃখিত মন নিয়ে দিল্লি ফিরে গিয়ে কোনও অন্য কাজ খুঁজে নেওয়াই হল পশ্চিমবঙ্গের ‘উদ্বেগজনক পরিস্থিতির’ উন্নতির একমাত্র রাস্তা ৷” এখানেই থামেননি তিনি। অন্য একটি ট্যইট পোস্টে মহুয়া রাজ্যপালের বিরুদ্ধে স্বজন পোষণেরও অভিযোগ আনেন। রাজভবনের নানা পদে রাজ্যপাল নিজের পরিবারের নানা ব্যক্তিকে বসিয়ে রেখেছেন বলেও তোপ দাগেন। তার একটি তালিকাও তুলে ধরেছেন তিনি। ক্যাপশনে তিনি লিখেছেন, “আর আঙ্কেলজি, আপনি যখন চলে যাবেন, তখন রাজভবনে আপনি যে আপনার পরিবার নিয়ে রয়েছেন, তাঁদেরও কিন্তু নিয়ে যাবেন।”

আরও পড়ুন: এবার নিউ টাউনে ভ্যাকসিন অন হুইলস

মহুয়ার সেই টুইটের ২৪ ঘন্টা কাটতে না কাটতেই ফের টুইট করলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। টুইটে তিনি তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা স্বজনপোষণ যাবতীয় অভিযোগ ওড়ান। তিনি লেখেন, “মহুয়া মৈত্র টুইট করে ৬ জন ওএসডি-র নিয়োগ ঘিরে স্বজনপোষণের যে অভিযোগ তুলেছেন, তা তথ্যগতভাবে সম্পূর্ণ ভুল। যাঁরা ওএসডি আছেন, তাঁরা তিনটি আলাদা রাজ্যের বাসিন্দা। ৪ ভিন্ন বর্ণের তাঁরা। আর তাঁদের কেউ আমার কোন নিকট আত্মীয় নন। এমনকী ৪ জন তো আমার রাজ্যের বাসিন্দাও নন, এমনকি আমার বর্ণেরও নন।” এখানেই শেষ নয়, এরপর তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ট্যাগ করে অপর একটি টুইটে লেখেন, “রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি উদ্বেগজনক। সেই পরিস্থিতি থেকে নজর ঘোরাতেই এই অভিযোগ আনা হয়েছে। কিন্তু সংবিধান অনুযায়ী রাজ্যের মানুষের জন্য আমার যা কাজ, তা আমি করে যাব।”

আরও পড়ুন: ‘আংকেলজি, দিল্লিতে ফিরে অন্য কাজ খুঁজে নিলেই রাজ্যের পরিস্থিতির উন্নতি হবে’, জগদীপ ধনখড়ের টুইটের জবাব দিলেন মহুয়া

যদিও এরপর রাজ্যপালকে উদ্দেশ্য করে পাল্টা টুইট করেন মহুয়া। রাজ্যপালের টুইটের পর তিনি ফের ‘আঙ্কেলজি’ সম্বোধন ফের লেখেন, “রাজভবনে যাঁদের ওএসডি নিয়োগ করা হয়েছে, তাঁদের অতীত পরিচয় কী, সেটা আপনাকে জানাতে অনুরোধ করছি। কী ভাবে ওই ৬ জনকে রাজভবনে নিয়োগ করা হল, তাও জানাতে অনুরোধ রইল।” এরপরেই বিজেপির আইটি সেলের উদ্দেশ্যে মহুয়া লেখেন, “বিজেপি-র আইটি সেল এবার থেকে আপনাকে আর বের করে আনতে পারবে না। দেশের উপরাষ্ট্রপতির পদও মনে হয় আপনার আর পাওয়া হল না।”

আরও পড়ুন: মেডিক্যল কলেজে ইঞ্জেকশন চুরি কাণ্ডে দোষী সাব্যস্ত চিকিৎসক দেবাংশী সাহা

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *