রাজ্যে শিক্ষক নিয়োগের মামলায় কমিশনকে ‘অপদার্থ’ আখ্যা দিল হাইকোর্ট

Mysepik Webdesk: রাজ্যের উচ্চপ্রাথমিকের ১৪৩৩৯ পদে শিক্ষক নিয়োগের প্রক্রিয়াটি বর্তমানে হাইকোর্টের বিচারাধীন। নিয়োগ প্রক্রিয়ায় গলদ রয়েছে, এই অভিযোগে মামলা হয়েছিল। ইন্টারভিউয়ের জন্য প্রকাশিত তালিকা নিয়ম মেনে হয়নি, এই অভিযোগের হাইকোর্টে একাধিক মামলা হয়। যার ফলে নিয়োগ প্রক্রিয়া স্থগিত রাখার নির্দেশ দেয় কলকাতা হাইকোর্ট। বৃহস্পতিবার সেই মামলার শুনানির সময় স্কুল সার্ভিস কমিশনকে রীতিমতো ভৎসনা করে হাইকোর্ট।

আরও পড়ুন: শুক্রবার শুরু হচ্ছে বিধানসভার অধিবেশন, মুকুল রায় বিরোধী বেঞ্চেই

এদিন শুনানির সময় হাইকোর্টের বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় সরাসরি স্কুল সার্ভিস কমিশনের উদ্দেশ্যে বলেন, “স্কুল সার্ভিস কমিশন অপদার্থ। কোন আধিকারিকরা এই কমিশন চালাচ্ছেন? এই কমিশনকে অবিলম্বে খারিজ করা উচিত।” এরপরেই তিনি প্রশ্ন করেন, “২০১৯ সালের অক্টোবরে শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে হাইকোর্ট থেকে যে নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল, তা মানা হয়নি কেন? সেই নির্দেশ মেনে ইন্টারভিউ লিস্ট প্রকাশ হয়নি কেন?” পাশাপাশি এদিন উচ্চ প্রাথমিক নিয়োগ মামলায় এসএসসি চেয়ারম্যানকে তলব করেন বিচারপতি। তিনি আজ দুপুরেই তাঁকে এজলাসে হাজির করার নির্দেশ দেন।

আরও পড়ুন: রেড রোডে পথদুর্ঘটনা, মৃত ১

প্রসঙ্গত, রাজ্যে উচ্চ প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে বেনিয়ম হচ্ছে, দাবি জানিয়ে হাইকোর্টের যারা দ্বারস্থ হয়েছিলেন পূর্ব বর্ধমানের পরীক্ষার্থী অভিজিৎ ঘোষ, মহঃ সারিকুল ইসলাম, বিশ্বজিৎ গড়াই। তাঁদের দাবি, নিয়ম অনুযায়ী ইন্টারভিউ তালিকায় থাকতে হবে টেট পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বর, অ্যাকাডেমিক স্কোর সহ ও অন্যান্য মার্কস। এক্ষেত্রে এই বিষয়গুলির কোনও উল্লেখ নেই তালিকায়। তাছাড়া বিশ্বজিৎ গড়াইয়ের আইনজীবী সুদীপ্ত দাশগুপ্ত জানান, তাদের হাতে প্রায় ১২ জন পরীক্ষার্থীর ভুলের তথ্য আছে, আদালতে সেগুলিও পেশ করা হয়। আদালত সমস্ত বিষয়গুলি পর্যবেক্ষণ করে স্থগিতাদেশের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। সেই মামলার শুনানি ছিল বৃহস্পতিবার।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *