বহাল থাকছে আগের রায়, পূজামণ্ডপ দর্শনার্থী-শূন্যই থাকছে

high court

Mysepik Webdesk: কাজে লাগল না ফোরাম ফর দুর্গোৎসবের আর্জি। বহাল রাখা হল আগের রায়ই। অর্থাৎ দর্শনার্থী-শূন্যই থাকছে পুজো প্যান্ডেল। তবে ১৯ অক্টোবর দেওয়া রায়ের সামান্য পরিবর্তন করে হাইকোর্ট জানিয়েছে, বড় মণ্ডপের (৩০০ বর্গ মিটারের বেশি) ভিতরে পুজোর আয়োজনে যুক্ত সর্বাধিক ৬০ জন এবং ছোট মণ্ডপের অর্থাৎ ৩০০ বর্গ মিটারের কম মণ্ডপের ক্ষেত্রে সর্বাধিক ২৫ জন একদিনে মণ্ডপের ভিতরে ঢুকতে পারবেন। আগের রায়ে বলা হয়েছিল, সর্বাধিক ২৫ জন একদিনে মণ্ডপের ভিতরে ঢুকতে পারবেন। তাঁদেরও মাস্ক, স্যানিটাইজার সহ সমস্ত স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে সেটা পরিবর্তন করে সর্বাধিক ৬০ জন করা হল। এদিন বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় এবং বিচারপতি অরিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডিভিশন বেঞ্চ এই রায় শুনিয়েছে।

আরও পড়ুন: নো এন্ট্রি বহাল থাকবে, নাকি দর্শনার্থীদের ঢুকতে দেওয়া হবে প্যান্ডেলে, পুনর্বিবেচনার রায় জানা যাবে আজই

গত সোমবার একটি জনস্বার্থ মামলার রায় দেওয়ার সময় হাইকোর্ট জানায়, ছোট হোক, কিংবা বড়, রাজ্যের সমস্ত পুজো প্যান্ডেলই থাকতে হবে ‘নো এন্ট্রি বাফার জোন’, প্যান্ডেল এরিয়ায় ব্যারিকেট দিয়ে করা থাকবে ওই বিশেষ জোন। সকলের যাতে নজর পরে সেরকম ভাবেই বড় বড় করে লিখে রাখতে হবে ‘নো এন্ট্রি জোন’। পাশাপাশি মন্ডপে একসঙ্গে ১৫ থেকে ২৫ জনের বেশি উদ্যোক্তাদের প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না।

আরও পড়ুন: প্রাচীন পুজোর রানাঘাট

ছোট মণ্ডপ হলে তার ৫ মিটারের মধ্যে এবং বড় মণ্ডপ হলে তার ১০ মিটারের মধ্যে কোনও দর্শনার্থী প্রবেশ করতে পারবে না। এছাড়াও আগে থেকে পুজো উদ্যোক্তাদের নামের তালিকা জমা দিতে হবে। রাজ্য সরকারের কাছ থেকে পাওয়া অনুদানের হলফনামা দিতে হবে। এদিন পুজোর ভিড় নিয়ে জনস্বার্থ মামলায় এমনটাই রায় দিল হাইকোর্ট। পাশাপাশি এদিন বিচারপতির বেঞ্চ জানিয়েছে, রাস্তায় ভিড় নিয়ন্ত্রণে অ্যাওয়ারনেশ ক্যাম্পেইন করতে হবে প্রশাসনকে।

Similar Posts:

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *