ফুটবলে বিপ্লব, বার্সা-রিয়াল-লিভারপুল-ম্যান ইউ সহ ১২ ক্লাব মিলে শুরু করতে পারে নয়া ইউরোপীয় সুপার লিগ

Europian

Mysepik Webdesk: ইউরোপের ১২টি ফুটবল ক্লাব ইউরোপীয় সুপার লিগ শুরু করতে চলেছে। এতে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ (ইপিএল)-এর শীর্ষ ছয়টি ক্লাব অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। বিশ্বের দুই অভিজাত ক্লাব বার্সেলোনা এবং রিয়াল মাদ্রিদও এর সঙ্গে সহমত হয়েছে। বড় ক্লাবের এই সিদ্ধান্ত বিশ্ব ফুটবলকে আন্দোলিত করেছে। যদিও ফুটবল বিশ্ব পরিচালিত সংস্থা ফিফা ইতিমধ্যে পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছে যে, তারা এ জাতীয় কোনও টুর্নামেন্টকে স্বীকৃতি দেবে না। শুধু তাই নয়, এই লিগে খেলা ফুটবলারদের বিশ্বকাপে না খেলতে দেওয়াও হতে পারে বলে সূত্রের খবর।

আরও পড়ুন: করোনা আশঙ্কার ছায়া এবার বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালকে কেন্দ্র করে

বিশেষজ্ঞদের মতে, ইউরোপীয় সুপার লিগ হলে ইউরোপীয় ফুটবল আজকের মতো থাকবে না। এটি পুরো বিশ্বের ফুটবল কাঠামোকে প্রভাবিত করবে। যদিও এতে ফ্রান্স বা জার্মানি থেকে কোনও ক্লাব শামিল নেই। তিনটি বৃহত্তম ইউরোপীয় দেশ― ব্রিটেন, ইতালি এবং স্পেনের ১২টি ক্লাব তাদের নিজস্ব লিগ গঠনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ঘোষণা অনুযায়ী, নতুন লিগটি চলতি বছরের আগস্ট থেকে শুরু হবে। এর মধ্যে রয়েছে ইংল্যান্ডের ছয়টি ক্লাব― আর্সেনাল, চেলসি, লিভারপুল, ম্যানচেস্টার সিটি, টটেনহাম এবং ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড; স্পেনের তিনটি ক্লাব― অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ, বার্সেলোনা, রিয়াল মাদ্রিদ এবং ইতালির তিনটি ক্লাব এসি মিলান, ইন্টার মিলান এবং জুভেন্টাস। ২০টি দল নিয়ে লিগ শুরু করার পরিকল্পনা রয়েছে। ৫টি ক্লাবের নাম উল্লেখ করা হয়নি। শোনা যাচ্ছে যে, ৩টি ক্লাবের শীঘ্রই যোগদানের সম্ভাবনা রয়েছে।

আরও পড়ুন: করোনা: স্থগিত ইন্ডিয়া ওপেন ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্ট

উল্লেখ্য যে, এই সুপার লিগ ফুটবল আয়োজিত হলে ইউরোপীয় ফুটবলে রীতিমতো বিপ্লব হবে। আয়োজক ক্লাবরা পাবে ৩৫ হাজার কোটি টাকা। স্বভাবতই এই লিগের পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হলে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ হয়ে পড়বে কার্যত জৌলুসহীন। কারণ চ্যাম্পিয়ন্স লিগে তখন খেলবে না প্রথম সারির ক্লাবগুলি। এমনটা হলে টিভি ভিউয়ারশিপ এবং দর্শক সংখ্যা, উভয় ক্ষেত্রই হ্রাস পাবে। সেই কারণেই ফিফার সঙ্গে এই ফুটবল টুর্নামেন্টের বিরোধিতা করছে উয়েফাও। তাই কেবল বিশ্বকাপই নয়, এই প্রতিযোগিতায় খেললে উয়েফা ও ফিফার সমস্ত টুর্নামেন্ট থেকে সংশ্লিষ্ট ক্লাব এবং ফুটবলারকে পর্যন্ত নির্বাসিত করা হতে পারে। যদিও সুপার লিগের উদ্যোক্তারা এখনও আশাবাদী যে, তারা ফিফা এবং উয়েফার সমর্থন পাবে।

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *