৭ সেপ্টেম্বর থেকে পর্যটকদের জন্য পাহাড় খুলে দেওয়ার প্রস্তাব রাজ্যকে

দার্জিলিংয়ের জিমখানা ক্লাবে পর্যটন শিল্পের সঙ্গে জড়িত ব্যবসায়ী, হোটেল মালিকদের সংগঠন, গাড়ির মালিক এবং চালকদের সংগঠনের সদস্যদের মিলিতভাবে একটি বৈঠক হয়। ওই বৈঠকে সব পক্ষই ফের পর্যটকদের জন্য পাহাড়ের রাস্তা খুলে দেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্তে পৌঁছেছে। সেক্ষেত্রে তাদের গৃহীত সিদ্ধান্ত অনুমোদনের জন্য পাঠানো হয়েছে রাজ্য এবং জিটিএ’র কর্তাদের কাছে। রাজস্ব সরকার এবং জিটিএ সবুজ সংকেত দিলেই ফের সেপ্টেম্বরের শুরুর দিকে খুলতে পারে পাহাড়ের দরজা। পুজোর মুখে পাহাড়ে ঘোরার জন্য পর্যটকদের অনুকূল আবহাওয়া তৈরি করে দেওয়াটাই ছিল এই বৈঠকের মূল উদ্দেশ্য।

আরও পড়ুন: খাস কলকাতায় চলন্ত বাস থেকে ছিটকে পড়লেন চালক, অল্পের জন্য রক্ষা পেলেন যাত্রীরা

সূত্রের খবর, পাহাড়ে পর্যটন শুরুর ব্যাপারটা অবশ্য সবটাই নির্ভর করছে প্রশাসনিক সিদ্ধান্তের উপর। লকডাউনের জেরে দীর্ঘদিন বন্ধ ছিল পর্যটন। ফলে ব্যাপকভাবে ধাক্কা খেয়েছে পর্যটন শিল্প। তবে পুজোর সময় ফের পর্যটকদের বুকিংয়ের ফোন আসতে শুরু করেছে পর্যটন ব্যবসায়ীদের কাছে। ব্যবসায়ীদের কাছে পর্যটকরা জানতে চেয়েছেন, হোটেল বুকিং নেওয়া হচ্ছে কিনা, কবে থেকে নেওয়া হবে, পাহাড়ে ঘোরার ক্ষেত্রে কতটা ঝুঁকি রয়েছে, এইসব প্রশ্নের উত্তর। এই প্রসঙ্গে হিমালয়ান হসপিটালিটি এণ্ড ট্যুরিজম ডেভলপমেন্ট নেটওয়ার্কের কো-অর্ডিনেটর তন্ময় গোস্বামী জানান, “পাহাড়ে পর্যটন ব্যবসা আস্তে আস্তে স্বাভাবিক করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। কারণ উত্তরবঙ্গের অর্থনীতি পর্যটনের উপর বিশেষভাবে নির্ভরশীল। সেক্ষেত্রে স্বাস্থ্যবিধি মেনেই যাবতীয় বুকিং নেওয়া হবে এবং পর্যটনকেন্দ্র ঘোরানো হবে।”

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *