বিশ্বের সবচেয়ে বেশি কার্বন ডাই-অক্সাইড নির্গমনকারী দেশ হিসেবে চিহ্নিত হল আমেরিকা, তার পরেই চিন

Mysepik Webdesk: বৈশ্বিক উষ্ণায়নের অন্যতম প্রধান কারণ কার্বন ডাই-অক্সাইড গ্যাসের অতিরিক্ত নির্গমন। আর সেই হিসেবে আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রকে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি কার্বন ডাই-অক্সাইড নির্গমনকারী দেশ হিসেবে চিহ্নিত করা হল। বিবিসি অনলাইনের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, বৈশ্বিক নির্গমনের সিংহভাগের জন্য দায়ী আমেরিকা। আমেরিকার মাথাপিছু কার্বন ডাই-অক্সাইড নির্গমনের পরিমাণ ১৫ দশমিক ৫ টন। আমেরিকার জ্বালানির ৮০ শতাংশের বেশি জীবাশ্ম জ্বালানি থেকে আসে।তবে আমেরিকা গত এক দশকে কার্বন ডাই-অক্সাইড নির্গমন কমিয়েছে। যদিও ক্লাইমেট অ্যাকশন ট্র্যাকার বলছে, যুক্তরাষ্ট্রের নীতি ও পদক্ষেপ যথেষ্ট নয়।

আরও পড়ুন: টেরর ফান্ডিং কেসে ৬ জনকে খালাস লাহোর হাইকোর্টের

অন্যদিকে বৈশ্বিক নির্গমনের এক-চতুর্থাংশের জন্য দায়ী চিন। বিশেষ করে কয়লানির্ভরতার কারণে দেশটির কার্বন ডাই-অক্সাইড নির্গমন এখনো বাড়ছে। চিনের মাথাপিছু কার্বন ডাই-অক্সাইড নির্গমনের পরিমাণ ৮ দশমিক ১ টন। যদিও চিন ২০২৬ সাল থেকে কয়লার ব্যবহার কমানোর অঙ্গীকার করেছে। কিন্তু, দেশটির অভ্যন্তরীণ জ্বালানির ক্রমবর্ধমান চাহিদা মেটাতে কয়লাখনিগুলোকে উৎপাদন বাড়াতে বলা হয়েছে। ‘ক্লাইমেট অ্যাকশন ট্র্যাকার’ বলছে, চীনের নীতি ও পদক্ষেপ যথেষ্ট নয়। সব দেশ যদি একই পথ অনুসরণ করে, তাহলে পৃথিবীর তাপমাত্রা ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেড়ে যাবে।

আরও পড়ুন: জেহাদি সংগঠন ‘তেহরিক-ই-লাবাইক’-কে ভোটে লড়ার অনুমতি দিল ইমরান সরকার

এদিকে গত দুই দশক ধরে ভারতের বার্ষিক কার্বন ডাই-অক্সাইড নির্গমন ক্রমাগত বাড়লেও তবে শীর্ষ পাঁচটি দেশের মধ্যে ভারতের মাথাপিছু কার্বন ডাই-অক্সাইড নির্গমন সবচেয়ে কম। এই সংখ্যা ১ দশমিক ৯ টন। তবে, ভারত কার্বন ডাই-অক্সাইড নির্গমন কমানোরলক্ষ্য স্থির করেছে। ক্লাইমেট অ্যাকশন ট্র্যাকার বলছে, লক্ষ্য অর্জনে ভারতকে ২০৪০ সালের আগেই কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদন ধাপে ধাপে বন্ধ করতে হবে।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *