পেট্রল-ডিজেলের বিকল্প হিসেবে ইথানলের ব্যবহার, বড়োসড়ো পদক্ষেপ কেন্দ্রের

Mysepik Webdesk: পেট্রল-ডিজেলের ক্রমবর্ধমান দামের জন্য প্রভাব পড়েছে আমাদের দৈনন্দিন জীবনে। পরিবহন খরচ বাড়তে থাকায় ক্রমশ বাড়ছে নিত্যপণ্যের দাম। এরই মধ্যে স্বস্তির খবর দিলো কেন্দ্রীয় সরকার। জানা গিয়েছে, পেট্রল-ডিজেলের পরিবর্তে ইথানলের ব্যবহার বাড়ানোর জন্য বড়োসড়ো পদক্ষেপ নিতে চলেছে কেন্দ্রীয় সরকার। এর ফলে এক লিটার জ্বালানির খরচ অন্তত ৩৫ থেকে ৪০ টাকা একধাক্কায় কমে যাবে। অর্থাৎ প্রতি লিটার জ্বালানির খরচ পড়বে ৬০ থেকে ৬২ টাকা। এর ফলে দৈনন্দিন জীবনে ব্যবহৃত জিনিসের দামও কমবে, যা অনেকটাই স্বস্তি দেবে সাধারণ মানুষকে।

আরও পড়ুন: জুলাই থেকেই বাড়ছে কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীদের মহার্ঘ ভাতা

বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় সড়ক পরিবহণ ও হাইওয়ে মন্ত্রী নীতিন গড়কড়ি জানিয়েছেন, আগামী ১০ দিনের মধ্যে কেন্দ্রীয় সরকার ফ্লেক্সিবেল ফুয়েল ইঞ্জিন (Flex-Fuel engines) নিয়ে বড়সড় সিদ্ধান্ত নিতে পারে। ফ্লেক্সিবেল ফুয়েল ইঞ্জিন হলো এমনি এক ধরণের ইঞ্জিন, যা পেট্রল-ডিজেলের মতো ইথানলকে দহন করতে পারে। তিনি জানান, খুব শীঘ্রই সরকার অটোমোবাইল সেক্টরে এই প্রযুক্তি বাধ্যতামূলক করতে চলেছেন। এর ফলে গাড়ির ইঞ্জিনে কেউ চাইলে পেট্রল-ডিজেলের মতোই ১০০ শতাংশ ইথানল ব্যবহার করতে পারে। প্রসঙ্গত, বর্তমানে প্রতি লিটার পেট্রলে ৮.৫ শতাংশ ইথানল মেশানোর অনুমতি রয়েছে।

আরও পড়ুন: মহারাষ্ট্রে ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ১০ হাজারেরও বেশি, করোনার তৃতীয় ঢেউ?

গড়কড়ি আরও জানান, ইতিমধ্যেই এই প্রযুক্তি ব্রাজিল, কানাডা এবং আমেরিকার অটোমোবাইল সংস্থাগুলি গাড়ির ইঞ্জিনে ব্যবহার করছে। সেখানকার গ্রাহকেরা বর্তমানে ১০০ শতাংশ পেট্রল বা ১০০ শতাংশ বায়ো-ইথানল ব্যবহার করতে পারেন। এই ইথানল পেট্রোলের চেয়ে অনেক ভাল জ্বালানি। পরিবেশবান্ধব এই জ্বালানি ব্যবহারের ফলে দূষণের মাত্রা অনেক কমে যায়। পদক্ষেপ দেশের অর্থনীতিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সহায়তা করবে বলেও মনে করেন নীতিন গড়কড়ি।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *