করোনার মাঝেই চিনে ৩টি উৎসব, তরুণরা মৃত্যুভয়ে লিখছেন উইল

Mysepik Webdesk: করোনাভাইরাসের প্রকৃত উৎস হিসাবে চিনের নাম করে থাকেন অনেকেই। আন্তর্জাতিক রাজনীতির ক্ষেত্রে এই বিষয়ে চর্চা এখনও হাতে গরম বিষয়। তবে, এশিয়ার এই বৃহত্তম শক্তিধর দেশটিতে বর্তমানে দেখা দিয়েছে একটু আলাদা চিত্র। যখন পৃথিবী আবার করোনার বিরুদ্ধে লড়াই শুরু করেছে, তখন জনসংখ্যার বিচারে বিশ্বের সবচেয়ে জনবহুল এই রাষ্ট্রে উৎসব পর্ব শুরু হয়েছে। প্রথম, ৩ দিন ব্যাপী ড্রাগন বোট উৎসব। এতে ১০ হাজারেরও বেশি খেলোয়াড় অংশ নিতে পারেন বলে জানা যাচ্ছে। ১২ জুন শনিবার থেকে ১৪ জুন সোমবার পর্যন্ত চলবে এই উৎসব। উল্লেখ্য, এই উৎসবকে ‘দুংবু ফেস্টিভ্যাল’-ও বলে।

আরও পড়ুন: উত্তপ্ত মায়ানমার: নিরাপত্তা বাহিনীর রাতভর অভিযানে গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যু ৬০ বিক্ষোভকারীর

দ্বিতীয়, টিউলিপ উৎসব, যা দেখতে প্রায় ৩০ হাজার মানুষ পৌঁছেছিলেন। একইসঙ্গে তৃতীয়, ডিজনিল্যান্ডের পঞ্চম বার্ষিকী উদ্‌যাপিত হয়েছিল সাংহাইতে। এ সময় সেখানে ছিল বিশাল আলোকসজ্জা ও বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠান। যা দেখার জন্য প্রায় ২৫ হাজার মানুষ উপস্থিত হয়েছিলেন। জানা গেছে যে, এই মুহূর্তে চিনে ৯০,৩২৯ জন মানুষ আক্রান্ত রয়েছেন। ৮৫,৪৪৯ মানুষ সুস্থ হয়ে উঠেছেন এবং প্রাণ হারিয়েছেন ৪৬৩৬ জন মানুষ।

আরও প্রুন: জাপানে বাড়ছে করোনা, স্বাস্থ্যমন্ত্রী বললেন বাতিল হবে না অলিম্পিক

এদিকে, চিনে ১৮ বছর বয়সি যুবকরা করোনায় মৃত্যুভয়ে উইল লিখতে ব্যস্ত। তাঁরা ভয় পেয়েছিলেন যে, করোনার কারণে মারা গেলে তাঁর সম্পত্তির কী হবে! চিনের রেজিস্ট্রেশন সেন্টার অনুসারে, ১৯৯০ সালের পরে জন্মগ্রহণকারী তরুণদের মধ্যে উইল লেখার সংখ্যা ৬০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে, যা আগের বছরগুলির তুলনায় অনেক বেশি। সম্প্রতি, সাংহাইয়ের এক ১৮ বছর বয়সি শিক্ষার্থী প্রায় ২.২৮ লক্ষ টাকা আয় করেছেন। তিনিও তাঁর উইল প্রস্তুত করে রেখেছেন।

আরও পড়ুন: ইউটার্ন পাকিস্তানের, ভারত থেকে তুলো ও চিনি আমদানিতে ‘না’ ইমরান মন্ত্রিসভার

ছবি গ্লোবাল টাইমস

চায়না উইল রেজিস্ট্রেশন সেন্টারের এক রিপোর্ট অনুসারে, ৮০ শতাংশেরও বেশি তরুণ তাঁদের জন্য উইল প্রস্তুত করছে। উল্লেখ্য যে, চিনের সংবিধানে বলা হয়েছে— ১৮ বছরের তরুণরা উইল লিখতে পারবেন। তাছাড়াও ১৬ বছরের তরুণরা উইল লিখতে পারবে, যদি তারা স্বাধীনভাবে আয় করতে সক্ষম হয়। তবে, করোনায় মৃত্যুভয়কে কেন্দ্র করে চিনা তরুণদের এই ইচ্ছাপত্র লেখার ধুম নিয়ে রীতিমতো চর্চা চলছে।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *