শান্তিনিকেতনের মন বুঝতে সাইকেল চেপে প্রবীণ আশ্রমিকদের বাড়ি বাড়ি ঘুরলেন জেলা পুলিশ সুপার

মহিউদ্দীন আহমেদ, শান্তিনিকেতন

কী বলতে চাইছে শান্তিনিকেতন? কী ভাবছেন শান্তিনিকেতনের প্রবীণ সম্মানীয় আশ্রমিকরা? শান্তিনিকেতনবাসীর মন বুঝতে প্রবীণ আশ্রমিকদের বাড়ি বাড়ি ঘুরলেন খোদ বীরভূমের জেলা পুলিশ সুপার শ্যাম সিং। নাহ, পুলিশের পোশাক, গাম্ভীর্য, নীল-লাল বাতির সাইরেন ডাকার শব্দের ঝাঁ-চকচকে চারচাকা গাড়ীর কনভয় নিয়ে নয়; শান্তিনিকেতনের অলিগলিতে, লাল মোরামের মাটির রাস্তায় পাজামা পাঞ্জাবি আর সাইকেল নিয়ে পাড়ার লোকের মতোই ঘুরলেন পুলিশ সুপার। সঙ্গে ছিলেন জেলা পুলিশের অনান্য কর্তাও।

আরও পড়ুন: রাজ্যে স্কুল খোলার বিষয়ে কী জানালেন শিক্ষামন্ত্রী, জানুন বিস্তারিত

সম্প্রতি বিশ্বভারতীর ভুবনডাঙা মেলার মাঠ সহ বিভিন্ন জায়গায় পাঁচিল তোলা নিয়ে বির্তকের জেরে এখন কার্যত স্তব্ধ শান্তিনিকেতন। তারপর কেটে গেছে কিছু দিন। শান্তিনিকেতনের আশ্রমিকরা কী ভাবছেন ও তাঁদের সমস্যাকে তা চাক্ষুষ উপলব্ধি করতে জেলা পুলিশের শীর্ষকর্তারা আশ্রমিকদের বাড়ি বাড়ি ঘুরলেন। শুনলেন তাঁদের সমস্যার কথা। সংগ্রহ করলেন তথ্যও। স্বয়ং জেলা পুলিশ সুপারকে নিজেদের বাড়িতে পেয়ে প্রবীণ আশ্রমিকরা যেমন খুশি হয়েছেন, তেমনি হয়েছেন অবাকও। শান্তিনিকেতনের বাসিন্দা বিশ্বভারতীর প্রাক্তনী সমাজকর্মী নুরুল হক বলেন, “স্বয়ং জেলা সুপার শ্যাম সিং সহ অনান্য পুলিশ কর্তা আশ্রমিকদের বাড়ি গিয়ে খোঁজ খবর নিয়েছেন এটা অবশ্যই প্রশংনীয়। জেলা পুলিশের এই উদ্যোগে শান্তিনিকেতনবাসী খুশি।”

আরও পড়ুন: খোলা চিঠি নয়, আলোচনা হোক খোলা মনে: চাইছে শান্তিনিকেতন

অনেকের মতে, যা আজ করে দেখাল বীরভূম পুলিশ তা সত্যিই তারিফযোগ্য। জেলার পুলিশ সুপারের এই অভিনব উদ্যোগ দেখে শান্তিনিকেতনবাসী বলছে, বিশ্বভারতীর সমস্যা মেটাতে যা পারেনি বিশ্বভারতী, এবার তা করে দেখিয়ে নজির গড়েছে জেলা পুলিশ।

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *