Latest News

Popular Posts

আজ সেনাধিনায়ক রাওয়াতের শেষকৃত্য, দেশজুড়ে শোকের আবহ

আজ সেনাধিনায়ক রাওয়াতের শেষকৃত্য, দেশজুড়ে শোকের আবহ

Mysepik Webdesk: বুধবার দুপুর ১২টা ২০ মিনিটে তামিলনাড়ুর কুন্নুরের জঙ্গলে বিধ্বস্ত হয় সেনাবাহিনীর Mi-17V5 হেলিকপ্টার। দুর্ঘটনায় দেশের প্রথম সিডিএস জেনারেল বিপিন রাওয়াত, তাঁর স্ত্রী মধুলিকা রাওয়াত-সহ ১৩ জনের মৃত্যু হয়। তাঁদের দেহাবশেষ তামিলনাড়ুর মাদ্রাজ রেজিমেন্টাল সেন্টার থেকে পূর্ণ মর্যাদার সঙ্গে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭.৪০ মিনিটে নয়াদিল্লির পালাম বিমানবন্দরে আনা হয় কফিনবন্দি নশ্বর দেহ। বিমানবন্দরে শ্রদ্ধা জানাতে যান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। উপস্থিত ছিলেন প্রয়াতদের পরিবারের সদস্যরাও। পরিবেশ ছিল খুবই বিষণ্ণ।

আরও পড়ুন: জল চেয়েছিলেন আহত জেনারেল, জানালেন প্রত্যক্ষদর্শী

এই সময় জেনারেল রাওয়াত এবং অন্যান্যদের কন্যারা নিজের প্রিয়জনকে কফিনবন্দি অবস্থায় দেখে আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন। দুর্ঘটনায় নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী মোদি প্রত্যেক পরিবারের সঙ্গে দেখা করে তাঁদের সান্ত্বনা দেন। মাদ্রাজ রেজিমেন্টাল সেন্টার থেকে হারকিউলিস এয়ারক্রাফটে সমস্ত মরদেহ দিল্লির পালাম বিমানবন্দরে আনা হয়। বিমান থেকে নামানোর পর কফিন বিমানবন্দর ভবনে রাখা হয়। সেনাবাহিনীর তিনটি শাখার অফিসাররা মৃতদেহ বহন করে নিয়ে আসেন। জেনারেল রাওয়াতকে তাঁর সঙ্গীরা ‘বীরা’ নামে ডাকতেন।

জেনারেল বিপিন রাওয়াতের দুই কন্যা কার্তিকা ও তারিণী বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলেন। জেনারেল রাওয়াতের কফিন যখন হারকিউলিস বিমান থেকে নামানো হয়, তখন দুই কন্যাই বাবা-মায়ের তেরঙ্গায় মোড়ানো কফিনের দিকে শূন্যদৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকেন। বাবা-মায়ের নশ্বর দেহে প্রণাম করে কফিনের ওপরে মাথা নত করেন দু’জনেই। উল্লেখ্য, রাওয়াত দম্পতির বড় মেয়ে কীর্তিকা বিবাহিত। তিনি মুম্বইতে থাকেন। ছোট মেয়ে তারিণী একজন আইনজীবী। দিল্লি হাইকোর্টে প্র্যাক্টিস করেন তিনি। এই দুই কন্যার হাতে ছিল গোলাপের পাপড়ি আর চোখে জল।

আরও পড়ুন: একনজরে দেখে নিন প্রয়াত বিপিন রাওয়াতের কর্মজীবন

একই দুর্ঘটনায় নিহত ব্রিগেডিয়ার এল এস লিডারের মেয়ে আশনা তার বাবার কফিনের কাছে পৌঁছলে পরিবেশ অত্যন্ত শোকাবহ হয়ে ওঠে। মাথা নিচু করে কফিনে চুমু খায় দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী আশনা। বাবাকে হয়তো কিছু বলতে চাইছিল সে। ছোট আশনার লেখালেখির নেশা আছে। ব্রিগেডিয়ার লিডারের স্ত্রীও তাঁর স্বামীর কফিনে মাথা রেখে তাঁকে শ্রদ্ধা জানান।

জেনারেল রাওয়াত ও অন্যান্যদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে পালাম বিমানবন্দরে প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং এবং NSA অজিত ডোভাল ৮.৩০ মিনিট নাগাদ সেখানে পৌঁছন। শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের পর তাঁরাও মৃতদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করেন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি রাত ৯টার দিকে বিমানবন্দরে পৌঁছে জেনারেল রাওয়াত-সহ সকল শহিদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। শহিদদের কফিন দেখে প্রধানমন্ত্রী হাত গুটিয়ে মাথা নিচু করে চোখ বন্ধ করেন। এরপর একে একে শহিদদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করে সান্ত্বনা দেন মোদি।

আরও পড়ুন: হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় প্রয়াত সিডিএস বিপিন রাওয়াত

তিন বাহিনীর প্রধানরাও শহিদদের শেষ দর্শনে আসেন। পুষ্পস্তবক অর্পণ করে তাঁরা জেনারেল রাওয়াত-সহ শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। আজ, শুক্রবার দিল্লিতে জেনারেল বিপিন রাওয়াতের শেষকৃত্য হবে। সকাল ৯টায় সামরিক হাসপাতাল থেকে জেনারেল রাওয়াত ও তাঁর স্ত্রী মধুলিকার মরদেহ তাঁদের বাড়িতে আনা হবে। শুক্রবার সকাল ১১টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত করজ মার্গের বাসভবনে সাধারণ মানুষ CDS জেনারেল বিপিন রাওয়াতকে শ্রদ্ধা জানাতে পারবেন। সামরিক কর্মীরা দুপুর ১২.৩০-১.৩০ মধ্যে সম্মান জানাবেন। এরপর শেষকৃত্যের জন্য তাঁদের নশ্বর দেহ নিয়ে যাওয়া হবে দিল্লি ক্যান্ট ব্রার স্কোয়ারে। অন্যদিকে, সামরিক হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় শহিদ ব্রিগেডিয়ার এল এস লিডারের শেষকৃত্য শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টা ১৫ মিনিটে দিল্লি ক্যান্টে করা হবে।

টাটকা খবর বাংলায় পড়তে লগইন করুন www.mysepik.com-এ। পড়ুন, আপডেটেড খবর। প্রতিমুহূর্তে খবরের আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুক পেজটি লাইক করুন। https://www.facebook.com/mysepik

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *