সিবিআই-তৃণমূলের টানাপোড়েনে জয়ী তৃণমূল, জামিন ফিরহাদ-সুব্রত-মদন-শোভনদের

Narad Case

Mysepik Webdesk: নারদাকাণ্ড নিয়ে দিনভর নাটক চলার পর অবশেষে জামিনে ছাড়া পেলেন তৃণমূল কংগ্রেসের চার হেভিওয়েট নেতা। গ্রেফতারের দিনেই জামিন পেয়ে গেলেন নারদাকাণ্ডে অভিযুক্ত ফিরহাদ হাকিম, সুব্রত মুখোপাধ্যায়, মদন মিত্র এবং শোভন চট্টোপাধ্যায়। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে এই ঘটনায় শুধু সিবিআইয়েরই নয়, মুখ পুড়ল বিজেপিরও।

আরও পড়ুন: প্রতিহিংসাপরায়ণতা কি সুচতুর চাল!

এদিন লকডাউনের মধ্যেই সকাল সকাল হঠাৎ করে সিবিআই কর্তারা পৌঁছে যান পরিবহণমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের বাড়িতে। একে একে গ্রেফতার করা হয় সুব্রত মুখোপাধ্যায়, মদন মিত্র এবং শোভন চট্টোপাধ্যায়কেও। তাঁদের গ্রেফতার করে নিয়ে আসা হয় সিবিআইয়ের কলকাতার সদর দপ্তর নিজাম প্যালেসে। তাঁদের গ্রেফতারির খবর পেয়ে নিজাম প্যালেসে পৌঁছে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রায় ৬ ঘণ্টা ধরে সেখানে কার্যত ধরনায় বসেন মুখ্যমন্ত্রী। বিকেলের দিকে বেরোনোর সময় তিনি বলে যান, ‘আদালতেই যা হওয়ার হবে।’

আরও পড়ুন: গ্রেপ্তারির সঠিক সময় এটি নয়: অধীর চৌধুরী

এদিন অভিযুক্তদের পক্ষে সওয়াল করেন তৃণমূল সাংসদ তথা আইনজীবী কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি প্রশ্ন তোলেন, যেখানে নারদকাণ্ড স্টিং অপারেশনে শুভেন্দু অধিকারী কিংবা মুকুল রায়কেও টাকা নিতে দেখা গিয়েছে, কেন তাদের গ্রেফতার করা হল না! বিচারকের সামনে শুরুতেই অভিযুক্ত চারজনের জামিনের আবেদন করেন তিনি। তাঁর আবেদনের বিরোধিতা করেন সিবিআইয়ের আইনজীবী। তাঁর দাবি, জামিনে ছাড়া পেলে ধৃতরা বাইরে বেরিয়ে প্রমাণ নষ্ট করে দিতে পারেন। সিবিআই এরপর অভিযুক্তদের ১৪ দিনের জেল হেফাজতে রাখার আবেদন জানান। পাল্টা কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় যুক্তি দেন ফিরহাদ, সুব্রতরা রাজ্যের মন্ত্রী এবং তাঁদের বর্তমান করোনা পরিস্থিতির কারণে আমজনতার জন্য কাজ করতে হবে। প্রায় ১ ঘণ্টা ১৫ মিনিট ধরে চলে সওয়াল-জবাব চলার পর অবশেষে জামিন মঞ্জুর করেন বিচারপতি।

কেন্দ্র এবং রাজ্যের মধ্যে এই সম্মুখ সমরে তৃণমূল কংগ্রেসই যে জয়ী হয়েছে, সেকথা বলাই বাহুল্য। তবে অত্যন্ত উদ্বেগের বিষয়, এই পরিকল্পনাবিহীন গ্রেফতারির পর রাজ্যের বিভিন্ন জায়গা যে তৃণমূল কংগ্রেসের সমর্থকদের বিক্ষোভস্থলে পরিণত হয়েছিল, তার দায় কে নেবে? বহু মানুষ লকডাউনের মধ্যে রাস্তায় নামার ফলে যদি কোভিড সংক্রমণের সংখ্যা আবারও বেড়ে যায়, তার দায় নিশ্চই ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কেউই নেবেন না!

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *