বিশ্ব গন্ডার দিবসের দিন অসমে জ্বালিয়ে দেওয়া হল আড়াই হাজার গন্ডারের খড়্গ

Mysepik Webdesk: খড়্গের ওষধি গুণের লোভে গন্ডার হত্যা বন্ধ করার লক্ষ্যে বড়োসড়ো পদক্ষেপ নিল অসম সরকার। বুধবার বিশ্ব গন্ডার দিবসের দিন চিতা জ্বালিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হল প্রায় আড়াই হাজার গন্ডারের খড়্গ। দীর্ঘ ৪২ বছর ধরে ওই খড়্গগুলি অসম সরকারের ট্রেজারিতে রাখা ছিল। সেই সঙ্গে বার্তা দেওয়া হল, গন্ডারের খড়্গে আদৌ কোনও ওষধি গুণ নেই, যার লোভে চোরাচালানকারীরা দীর্ঘদিন ধরে জঙ্গলে গন্ডার নিধন করে আসছিল। প্রসঙ্গত, ওই খড়্গগুলি বিভিন্ন সময়ে পাচার হওয়ার সময় অসম সরকার বাজেয়াপ্ত করেছে।

আরও পড়ুন: শিশুদের ক্লাস চলাকালীন হুড়মুড়িয়ে ভাঙল বিল্ডিঙের ছাদ, আহত ২৫

রীতিমতো আনুষ্ঠানিকভাবে চিতা সাজিয়ে, মন্ত্রোচ্চারণ করে, শাঁখ বাজিয়ে ২ হাজার ৪৭৯টি খড়্গ অগ্নিসংযোগ করে পুড়িয়ে ফেলা হয়। ড্রোনের মাধ্যমে ওই চিতাগুলিতে অগ্নিসংযোগ করেন খোদ অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা। গুয়াহাটি থেকে প্রায় ২৪০ কিলোমিটার দূরে একটি স্টেডিয়ামে এই খড়্গগুলিকে পোড়ানোর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন হিমন্ত বিশ্বশর্মার মন্ত্রিসভার অন্যান্য মন্ত্রীও।

আরও পড়ুন: সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্তে পেগাসাস মামলায় তদন্ত কমিটি গঠন, চাপে কেন্দ্র

হিমন্ত বিশ্ব শর্মা সংবাদমাধ্যমকে বলেন, “এই কর্মসূচির মাধ্যমে আমরা গোটা বিশ্বের কাছে একটা বিশেষ বার্তা দিতে চাই। সেই বার্তা এটাই যে গন্ডারের খড়্গ শুধুমাত্র গন্ডারের চুলেরই পরিবর্তিত রূপ। এর কোনও ঔষধি গুণ নেই। আমি সকলকেই শুধুমাত্র কুসংস্কারের উপর ভিত্তি করে এই বিরল প্রজাতির পশুকে হত্যা না করার ব্যাপারে অনুরোধ করছি। আমাকে অনেকেই বলেছেন, এগুলিকে নষ্ট না করে বিক্রি করে দিলে ভালো হত। সেটা আমরা করতে পারি না, কারণ যেভাবে বাজেয়াপ্ত ড্রাগ আমরা বিক্রি করতে পারি না, সেরকমই বাজেয়াপ্ত হওয়া গন্ডারের খড়্গও আমরা বিক্রি করতে পারি না। আফ্রিকাতেও এভাবেই গন্ডারের খড়্গকে নষ্ট করে দেওয়া হয়। কিন্তু সেটাও এতটা পরিমাণে নয়। আমরা এব্যাপারে বিশ্বরেকর্ড করে ফেললাম।”

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *