UP গণধর্ষণ: ২ সপ্তাহ মৃত্যুর সঙ্গে লড়াইয়ের পর মৃত তরুণী

Death

Mysepik Webdesk: ২ সপ্তাহ মৃত্যুর সঙ্গে তীব্র লড়াই করে অবশেষে হার মানলেন। গণধর্ষণ ও নৃশংস অত্যাচারের পর সংকটজনক অবস্থায় উত্তরপ্রদেশের এক তরুণীকে প্রথমে সে রাজ্যেরই একটি হাসপাতালের আইসিউ-তে ভর্তি করা হয়েছিল। অবস্থা অত্যন্ত সংকটজনক হওয়ায় সোমবার রাতে তাঁকে দিল্লির একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। মঙ্গলবার সকালে দিল্লির হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

আরও পড়ুন: মানবিক ভারত: অসুস্থ নেপালি কন্যাসন্তানের চিকিৎসার জন্য খুলে দেওয়া হল সাসপেনশন ব্রিজ

২০ বছরের ওই তরুণী নিজের গ্রামেই গণধর্ষিতা হয়েছিলেন। সেই সঙ্গে তার উপর চলে নৃশংস অত্যাচার। জিভ কাটা অবস্থায় এবং শরীরে বেশ কয়েকটি হাড় ভাঙা অবস্থায় তাঁকে সে রাজ্যেরই একটি হাসপাতালের আইসিউ-তে ভর্তি করা হয়েছিল। গত ১৪ সেপ্টেম্বর উত্তরপ্রদেশের হাথরাসে নিগ্রহের শিকার হয় মেয়েটি। পরিবারের সঙ্গে মাঠে ঘাস কাটছিলেন ওই তরুণী। তখনই সেখান থেকে ওড়না ধরে টানতে টানতে মেয়েটিকে একটি মাঠে নিয়ে যায় অভিযুক্তরা বলে নিগৃহীতার দাদা জানিয়েছেন।

আরও পড়ুন: ‘গুলি করে মারবেন না’ বুকে প্ল্যাকার্ড ঝুলিয়ে আসামি হাজির থানায়

গত কয়েক মাসে উত্তরপ্রদেশে একের পর এক মহিলাদের বিরুদ্ধে অপরাধের ঘটনা ঘটে চলায়, দেশজুড়ে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। পুলিশ অবশ্য চার অভিযুক্তকেই গ্রেফতার করেছে। ধর্ষিতা মেয়েটি তফশালি জাতিভুক্ত, তবে অভিযুক্তরা প্রত্যেকেই উচ্চবর্ণের। নিগৃহীতার পরিবারের অভিযোগ, পুলিশ প্রথমে তাদের কোনও সাহায্যই করেনি। কিন্তু পরে জনরোষের চাপে পড়ে ব্যবস্থা নিতে বাধ্য হয়।

উত্তরপ্রদেশ পুলিশ অবশ্য দেরিতে ব্যবস্থা নেওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করেছে। হাথরাসের পুলিশপ্রধান বিক্রান্ত বীর জানিয়েছেন, ‘এটা খুবই দুঃখজনক ঘটনা। পুলিশ যথাসাধ্য দ্রুততার সঙ্গে কাজ করেছে। আমি ব্যক্তিগতভাবে এর দ্রুত তদন্ত হবে এটা আশ্বাস দিচ্ছি এবং ফাস্ট ট্রাক কোর্টে মামলার শুনানির ব্যবস্থা করছি।’

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *